মমতার শপথ গ্রহণের দিনেই দেশজুড়ে ধর্নায় বসবে বিজেপি, দুদিনের রাজ্য সফরে জেপি নাড্ডা

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: বিধানসভা ভোটে বিপুল ভোটে তৃণমূলের জয়লাভের পর এই রাজ্যজুড়ে তৃণমূলের কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস চালানোর অভিযোগ করলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। বিজেপির অভিযোগ, তৃণমূলের কর্মী সমর্থকদের সন্ত্রাসের বলি হয়েছেন বিজেপির বহু কর্মী-সমর্থকরা। বিভিন্ন জেলায় জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে বিজেপির দলীয় কার্যালয়। এর প্রতিবাদে ৫ মে, বুধবার তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃতীয় বার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করার দিনেই দেশজুড়ে ধর্নায় বসবে বিজেপি। আজ, রাজ্যের ক্ষতিগ্রস্ত দলীয় কর্মীদের পরিবারের পাশে দাঁড়াতে দুদিনের রাজ্য সফরে এসে পৌঁছন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা।

প্রসঙ্গত, নীল বাড়ি দখলের লড়াইয়ে গেরুয়া শিবিরকে ব্যাপক ব্যবধানে পরাস্ত করে ফেরতৃতীয়বারের জন্য রাজ্যে ক্ষমতায় আসতে চলেছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে তৃণমূলের সরকার। ২৯৪ বিধানসভা আসনের মধ্যে ২১৩ টি আসনে জয়লাভের পর আগামীকাল সকাল পৌনে এগারটা নাগাদ রাজভবনে তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ গ্রহণ করবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ঠিক সেইদিনই বিজেপির দেশজুড়ে ধর্না কর্মসূচি পালনের ডাক দিয়ে সোমবার একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি জারি করে বিজেপির অভিযোগ করে, ভোটের ফলাফল বার হওয়ার পর থেকেই রাজ্যে তান্ডব চালানো শুরু করেছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। দলের বহু কর্মীকে খুন করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তাঁরা। এর পাশাপাশি দলীয় কার্যালয়, দোকান, ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ বিজেপির। বিজেপির দাবি, এই গোটা ঘটনায় নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু তাই নয় এ বিষয়ে রাজ্যপাল জাগদীপ ধনখরকেও একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানিয়েছে বিজেপি। এই ঘটনার প্রতিবাদে দুদিনের রাজ্য সফরে এসে দলীয় ক্ষতিগ্রস্থ এবং তাদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করবেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি।