“১৫ বছর বয়সে মেয়েরা প্রজননের উপযুক্ত হয়ে যায়”; বিতর্কিত মন্তব্য কংগ্রেস নেতা সজ্জন সিংহ বর্মার

ছবি সৌজন্যে সজ্জন সিংহ বর্মার ফেসবুক পেজ।

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ১৫ বছর বয়সেই মেয়েরা প্রজননের উপযুক্ত হয়ে যায় আর আঠারো বছর বয়সে মেয়েরা পরিপক্ক হয়ে যায়। তাই নাকি, বিবাহের জন্য নূন্যতম বয়সের সীমা ১৮ বছর থেকে বাড়িয়ে ২১ বছর করার মধ্যে কোন যুক্তি নেই। এমনই বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস নেতা ও প্রাক্তন মন্ত্রী সজ্জন সিংহ বর্মা। রাজ্যের বিজেপি সরকারেরমুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের মেয়েদের বিবাহের নূন্যতম বয়স ১৮ বছর থেকে বাড়িয়ে ২১ বছর করার মন্তব্যের বিরোধিতা করতে গিয়ে এমনই মন্তব্য করেছেন ওই কংগ্রেস নেতা। মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মন্ত্রী ও কংগ্রেস নেতা সজ্জন সিংহ বর্মার এ ধরনের মন্তব্যের পর ইতিমধ্যেই বিভিন্ন মহলে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

একটি সাংবাদিক সম্মেলনে মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস নেতা সজ্জন সিংহ বর্মা বলেছেন যখন ১৫ বছর বয়সেই মেয়েরা প্রজনন যোগ্য হয়ে যান তাহলে ২১ বছর বয়সে মেয়েদের বিয়ের বয়স স্থির করার পেছনে যুক্তি কোথায়? তিনি আরো বলেন শিবরাজ সিংহ এমন কোথাকার বৈজ্ঞানিক বা ডাক্তার হয়ে গেছেন যে তিনি এ ধরনের বিষয়ে আলোচনা করা প্রয়োজনীয় বলে মন্তব্য করেন। শুধু তাই নয় ওই কংগ্রেস নেতার মন্তব্য অনুযায়ী মেয়েরা ১৮ বছর বয়সে বিয়ের জন্য পরিণত হয়ে যান।

এ প্রসঙ্গে রাজ্যের বিজেপি সরকারের সমালোচনা করে তিনি আরো বলেন, ১৩ বছরের বাচ্চা মেয়েদের বাঁচাতে পারছেন না আর ২১ বছরে মেয়েদের বিয়ে হওয়া উচিত বলে যুক্তি দিচ্ছেন। সজ্জন সিংহ বর্মা আরো বলেন, মধ্যপ্রদেশের লাগাতার মহিলা দের এবং বাচ্চাদের উপর অত্যাচারের ঘটনা বেড়েই চলেছে। যা রোধ করতে এই সরকার ব্যর্থ প্রমাণিত হচ্ছে। ১৮ বছর বয়সে মেয়েদের বিয়ে হওয়া সঠিক।