সংসদ কর্তৃক প্রণীত তিনটি আইনের প্রয়োগের ওপর জারি করা শীর্ষ আদালতের স্থগিতাদেশ অসাংবিধানিক: মার্কণ্ডেয় কাটজু

ছবি সৌজন্যে মার্কণ্ডেয় কাটজুর ফেসবুক পেজ।

দেবিকা মজুমদার,টিডিএন বাংলা: কেন্দ্রের তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে দিল্লির সীমান্তে কৃষক সংগঠনের সদস্যদের লাগাতার বিক্ষোভ প্রদর্শনের মাঝেই গতকাল সুপ্রিম কোর্ট তিনটি কৃষি আইন বলবৎ করার বিষয়ে স্থগিতাদেশ জারি করেছে। পাশাপাশি কৃষকদের সমস্যা সমাধানের জন্য চার সদস্যের একটি উচ্চ স্তরীয় কমিটিও গঠন করা হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে গঠিত এই কমিটির সদস্য হিসেবে থাকছেন ভারতীয় কৃষক ইউনিয়নের ভূপিন্দর সিংহ মান, শেতকারী সংগঠনের অনিল ঘনবট, ডক্টর প্রমোদ জোশি এবং কৃষি অর্থশাস্ত্রী অশোক গুলাটি।

শীর্ষ আদালতের এই সিদ্ধান্তকে অনেক কৃষক সংগঠন স্বাগত জানালেও বেশ কয়েকটি কৃষক সংগঠন এমনও আছে যারা এই সিদ্ধান্তের জন্য নিরাশা প্রকাশ করেছেন। কৃষক নেতারা বলেন, যতক্ষণ না আইন ফেরত নেওয়া হচ্ছে ততক্ষণ পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন শেষ হবে না।

এদিকে, সুপ্রিম কোর্টের এহেন সংসদে তৈরি হওয়া তিনটি আইনের প্রয়োগের ওপর স্থগিতাদেশ জারি করা অসাংবিধানিক বলে সরব হয়েছেন বিশিষ্ট আইনজীবী ও সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি মার্কণ্ডেয় কাটজু। শুধু তাই নয় তিনি বলেছেন, তাঁর সুদীর্ঘ লিগাল কেরিয়ারে তিনি কখনোই এমন কোন রায় দেখেননি যেখানে সংসদে তৈরি হওয়া কোন আইনের প্রয়োগের ওপর আদালতের কোন অন্তর্বর্তীকালীন রায়ের মাধ্যমে স্থগিতাদেশ জারি করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে নিজের দীর্ঘ কর্মজীবনের প্রসঙ্গ উত্থাপন করে মার্কণ্ডেয় কাটজু লিখেছেন,”আমি ২০ বছর আইনজীবী ছিলাম এবং ২০ বছর বিচারপতি (তিনটি হাইকোর্ট এবং সুপ্রিম কোর্টে) ছিলাম কিন্তু আমার লিগাল কেরিয়ারে কখনো আদালতের এমন অন্তর্বর্তীকালীন রায় দেখিনি যা সংসদে তৈরি হওয়া আইনের প্রয়োগের ওপর স্থগিতাদেশ জারি করে।”

এরপর অপর একটি টুইটে সুপ্রিম কোর্টের এহেন সিদ্ধান্তকে অসাংবিধানিক বলে মন্তব্য করে মার্কণ্ডেয় কাটজু লিখেছেন,”সুপ্রিম কোর্টের প্রতি শ্রদ্ধার সাথে, আমি জানাচ্ছি যে সংসদ কর্তৃক প্রণীত তিনটি আইনের প্রয়োগের ওপর জারি করা স্থগিতাদেশ অসাংবিধানিক এবং আইনশাস্ত্রের সমস্ত সিদ্ধান্তের বিপরীত।”