টিডিএন বাংলা ডেস্ক: আলিগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটির ছাত্র সর্জিল উসমানীকে আজমগড়ে তার বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। উসমানীর পাশাপাশি তার অন্যান্য বন্ধুদের ও গ্রেফতার ক’রে থানায় নিয়ে যায় আজামগড় পুলিশ। এরপরেই তাদের ওপর অকথ্য অত্যাচার চালানো হয় বলে অভিযোগ করে উসমানী ও তার বন্ধুরা। “দি ওয়্যার” নামে প্রকাশিত একটি সংবাদ মাধ্যমের তুলে ধরা একটি ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, সর্জিল উসমানী ও তার বন্ধুরা তাদের ওপরে হওয়া ভয়ানক অত্যাচারের কথা জানাচ্ছে। ওই সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ভিডিওতে তাদের গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি থাকতেও দেখা যাচ্ছে।
অপরদিকে,উসমানীকে অ্যারেস্ট-এর বিষয় আজমগড় পুলিশের পক্ষ থেকে কোন সরকারি ঘোষণা করা হয়নি। যদিও অতিরিক্ত জেলা সুপারিনটেনডেন্ট অফ পুলিশ (অপরাধ) অরবিন্দ কুমার একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, গত ডিসেম্বরে আলীগড় ইউনিভার্সিটি তে হওয়া হওয়া একটি কেসের সূত্রেই লখনৌ এর অ্যান্টি-টেররিজম স্কোয়াড থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে উসমানীকে।

প্রসঙ্গত, আলিগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটির কিছু ছাত্ররা গতবছর ১৫ ডিসেম্বর দিল্লির জামিয়া মিলিয়া ইউনিভার্সিটির ভেতর সিএএ-এনআরসি এবং এনপিআর-এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছিল। পুলিশের অভিযোগ অনুযায়ী, উসমানী এবং তার বন্ধুরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেতর যে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলো তা রুখতে চেষ্টা করলে পুলিশ বাহিনীকে লক্ষ্য করে তারা পাথর ছুড়তে শুরু করে যার ফলে ১৯ জন পুলিশ আহত হন।

অপরদিকে, পুলিশের এই অভিযোগকে সম্পুর্ণ নস্যাৎ ক’রে আলিগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটির ছাত্রদের অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢোকার কোনরকম অনুমতি না নিয়েই জোর করে পুলিশ বাহিনী ঢুকে পড়ে ক্যাম্পাসের ভেতর এবং