টিডিএন বাংলা ডেস্ক: পশ্চিমবঙ্গের নাম বাংলা করার জন্য একাধিকবার কেন্দ্রের কাছে আবেদন করেছে রাজ‍্য। কিন্তু কেন্দ্র সেই আবেদন কে নাকচ করে দেয়। এবার রাজ‍্যের নাম পরিবর্তন করা নিয়ে সংসদে সরব তৃণমূল সাংসদ আহমদ হাসান ইমরান। রাজ‍্যের অভিযোগ, রাজ‍্য সরকার ও বিরোধী সমস্ত রাজনৈতিক দল মিলিতভাবে রাজ্যের নাম পরিবর্তন করার প্রস্তাব গ্রহণ করলেও এখনও পর্যন্ত কেন্দ্রীয় সরকার এই রাজ্যের নাম পরিবর্তন করে ‘বাংলা’ করেনি।

বুধবার রাজ্যসভায় শহর, রেলওয়ে স্টেশন প্রভৃতি নাম পরিবর্তন সম্পর্কে এক প্রশ্নোত্তর পর্বে বিষয়টি উত্থাপন করেন সাংসদ আহমদ হাসান (ইমরান)।
আহমদ হাসান বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার গত তিন বছরে বেশকিছু শহর, রাস্তা, রেলওয়ে স্টেশন প্রভৃতির নাম পরিবর্তন করেছে। যেমন এলাহাবাদ শহরের নাম পরিবর্তন করা হয়েছে– নাম পরিবর্তিত হয়েছে মুঘলসরাই স্টেশনেরও।

আহমদ হাসান প্রশ্ন তোলেন, পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় কয়েকবার শাসক ও বিরোধীদল মিলে সর্বসম্মতভাবে রাজ্যের নাম পরিবর্তন করে ‘বাংলা’ করার প্রস্তাব গৃহীত হয়। কিন্তু তা সত্ত্বেও কেন্দ্রীয় সরকার পশ্চিমবাংলার নাম পরিবর্তন করেনি। আহমদ হাসান (ইমরান) প্রশ্ন তোলেন, কেন্দ্রীয় সরকার গত ৪ বছরে বহু জায়গায় নাম পরিবর্তিত করেছে। কিন্তু পশ্চিমবাংলার ক্ষেত্রে জনপ্রতিনিধিদের প্রস্তাব সত্ত্বেও কেন রাজ্যের নাম পরিবর্তন করা হচ্ছে না?

উত্তরে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিত্যানন্দ রাই বলেন, রাজ্যের নাম পরিবর্তন করতে হলে সংবিধান সংশোধন করা প্রয়োজন। এ ছাড়া পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্র বাংলাদেশের সঙ্গে ‘বাংলা’ নামের সাদৃশ্য থাকায় বিভ্রান্তির সৃষ্টি হতে পারে। তিনি আরও বলেন, এ সব বিষয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে। রাজ্যসভায় তৃণমূল সাংসদ মানস ভুঁইঞা, মণীশ গুপ্ত, দোলা দেন, শুভাশিস চক্রবর্তী উঠে দাঁড়িয়ে মন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদ করেন। তাঁরা সমস্বরে বলেন, যদি সংবিধান সংশোধন করার প্রয়োজন হয়, তবে তা করতে হবে।

সাংবাদিকদের পরে সাংসদ আহমদ হাসান ও মানস ভুঁইঞা বলেন, অতীতে তামিলনাড়ু, ওড়িশা প্রভৃতি রাজ্যের নাম পরিবর্তিত হয়েছে। বাংলার জনগণের ও জনপ্রতিনিধিদের দাবিকে উপেক্ষা করে কেন্দ্রীয় সরকার যে অবস্থান নিয়েছে– তা মোটেই কাম্য নয়।