Screenshots taken Priyanka Gandhi's Facebook post

নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা: সবেমাত্র বিহার বিধানসভা নির্বাচনের নির্ঘণ্ট প্রকাশ হয়েছে। এর মধ্যেই রীতিমত লাঠি হাতে বিরোধীদের শায়েস্তা করতে নেমে পড়েছেন বিজেপি সমর্থকেরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় এমনই একটি চাঞ্চল্যকর ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে। প্রথমে নিজের ফেসবুক পেজে এই ভিডিও শেয়ার করেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভাদ্রা। পরে এই ভিডিও টুইটারে শেয়ার করেন বিশিষ্ট আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ সহ একাধিক বিরোধী দল নেতারা।

সদ্য পাশ হওয়া কৃষি বিলের বিরোধিতায় গতকাল দেশজুড়ে চলতে থাকা ভারত বন্ধের উপলক্ষে কৃষকদের সমর্থন করে এবং কৃষি বিলের বিরুদ্ধে বিরোধিতা প্রদর্শন করতে বেরিয়েই বিপদের মুখে পড়েন এক বিরোধী দলনেতা। আর তাই দেখে রীতিমত রেগে আগুন বিজেপি সমর্থকরা। যে ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ্যে এসেছে সেখানে দেখা যাচ্ছে কৃষি বিলের বিরোধিতা করে মোদি সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান লিখে একটি ভ্যানে করে বেরিয়েছেন এক বিরোধী দলনেতা ও তার সমর্থকরা। আর হঠাৎই লাঠিসোটা নিয়ে তাঁদের ওপর চড়াও হয়েছেন কয়েকজন বিজেপি সমর্থক। ঘটনাস্থলে উপস্থিত রয়েছে পুলিশও। পুলিশের সামনেই দিব্যি ভ্যানের সবার ওই বিরোধী দলনেতা ও তার সমর্থকদের রীতিমতো লাঠিপেটা করছেন “মোদী জিন্দাবাদ” স্লোগান ধারী বিজেপি সমর্থকরা। ভ্যানের গায়ে লাগিয়ে রাখা পোস্টার, ফ্লেক্স সব ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে।

এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই রীতিমতো তোলপাড় শুরু হয়ে গেছে রাজনৈতিক মহলে। বিহারের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে লক্ষ্য করে কেন্দ্রের মোদি সরকারের বিরুদ্ধে একে একে সরব হয়েছেন বিভিন্ন বিরোধী দল নেতারা। এই ভিডিও নিজের সোশ্যাল একাউন্টে তুলে ধরে কেন্দ্র সরকারের তথা বিজেপির সমালোচনা করেছেন বিশিষ্ট আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ। তিনি একটি টুইট করে লিখেছেন,”এই মোদী ভক্তরা বা বিজেপির গুন্ডারা যারা কৃষকদের সমর্থনকারীদের লাঠিপেটা করছে তারা এই গুন্ডারাজ জ্বালানোর জন্য পুলিশের কাছ থেকে সম্পূর্ণ সুরক্ষা পাচ্ছে।”

এই একই ভিডিও নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে শেয়ার করে এই ঘটনাকে বিজেপির বিরুদ্ধে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেছেন আম আদমি পার্টির নেতা সঞ্জয় সিংহ। একটি টুইট করে তিনি লিখেছেন,”মোদিজীর স্লোগান তুলে একজন বিহারী আরেকজন বিহারীকে মারো এটাই কি মোদিজীর সন্দেশ? দেখো পার্টনার রাস্তার ওপর বিজেপির প্রকাশ্যে গুন্ডামি।”

অপরদিকে, রাষ্ট্রীয় জনতা দল এর পক্ষ থেকে সরাসরি কোন টুইচ না করা হলেও এই ঘটনা নিয়ে এক জনৈক বিহারবাসি শরিকুল বাড়ির একটি টুইটকে রিটুইট করে পোস্ট করা হয়েছে। শরিকুল বারি নামের ওই ব্যক্তি এই বিতর্কিত ভিডিওটি পোস্ট করে লিখেছেন,”বিজেপির “কোড অফ কন্ডাক্ট”(আচরণবিধি) প্রকাশিত। বেচারা ব্যক্তি প্রায় লাঠিপেটা হচ্ছেন আর পুলিশ নির্বাক দর্শকের মত দাঁড়িয়ে রয়েছে।”

কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী লিখেছেন,”#বিজেপি-নীতিশের গুন্ডারা পুলিশের উপস্থিতিতে আন্দোলনকারী কৃষকদের লাঠি দিয়ে মারল।”

Screenshot taken from Priyanka Gandhi’s Facebook page