টিডিএন বাংলা ডেস্ক: লকডাউনের  জেরে দেশজুড়ে এখন শুধুই হাহাকার। এরই মধ্যে চূড়ান্ত  অমানবিক  ও হাড়হিম করা ঘটনা প্রকাশ্যে এলো।উত্তরপ্রদেশের সিদ্ধার্থ নগর জেলার সোনৌড়া গ্রামের ঝোপে কাদা মাটির তলা থেকে উদ্ধার এক জীবন্ত সদ্যোজাত।প্রাথমিকভাবে অনুমান, শিশুটিকে জীবন্তঅবস্থাতেই কেউ সেখানে পুঁতে দেয়।

কথায় বলে, ‘রাখে আল্লাহ, মারে কে?’  যোগী রাজ্যে ঘটেছে তেমনই এক ঘটনা।এক সদ্যোজাতকে কবর দিয়ে  চলে যায়  কেউ বা কারা। কিন্তু পায়ের নরম কচি  পাতা কোনও ভাবে মাটির ওপরে থেকে যায়। শুধু তাই নয়, কাদামাটির তলা থেকে চিৎকার করে কেঁদে নিজের অস্বিস্ত জানান দিচ্ছিল সে। নবজাতকের সেই চিলচিৎকার কানে যায় স্থানীয়দের। কান্নার সেইশব্দকে অনুসরণ করতে করতে ঠিক সেইজায়গাতেই চলে আসে এলাকার বাসিন্দারা।তখনই কাদার ওপর বেরিয়ে থাকা সদ্যোজাতরপায়ে হোঁচট খায় তারা। তড়িঘড়ি কাদা থেকেউদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান গ্রামেরবাসিন্দারা।

হাসপাতালের দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসকরাশিশুটিকে পরিষ্কার করে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন।করোনা সংক্রমণ আছে কীনা তাও দেখা হয়।যদিও রিপোর্টে উদ্বেগজনক কিছু মেলেনি। 

হাসপাতাল সূ্ত্রে খবর, নবজাতকের অবস্থাবর্তমানে স্থিতিশীল। তবে তার পেটের মধ্যেকাদামাটি ঢুকে গেছে। উদ্ধার হওয়া নবজাতকএকটি পুত্র সন্তান। এদিকে রাজধানী শহরলখনউ থেকে ২৬০ কিমি দূরে ওই গ্রামেরঘটনায় বেশ সাড়া পড়েছে। কে বা কারা জঘন্য,পাশবিক ওই কাণ্ড ঘটিয়েছে, তা খতিয়ে দেখাহচ্ছে। আপাতত অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির বিরুদ্ধেএকটি মামলা দায়ের করে তদন্ত শুরুকরেছে পুলিশ। সৌজন্য- পুবের কলম