নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: মোদী- ২.০ সরকারের প্রথম বছরকে অত্যন্ত স্বৈরাচার ও নৈরাজ্যতে ভরা এক বিপর্যয়মূলক দুর্ভোগ বলে অভিহিত করলেন ওয়েলফেয়ার পার্টি অফ ইন্ডিয়ার কেন্দ্রীয় সভাপতি ডঃ এস কিউ আর ইলিয়াস। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতি বলেন, প্রধানমন্ত্রী হিসাবে প্রথম মেয়াদে মোদী বিচার বিভাগ, ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংক, কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরো, কেন্দ্রীয় নজরদারি কমিশন এবং কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলির যথেষ্ট হতাশাজনক অবস্থা সৃষ্টি করা হয়েছিল। দ্বিতীয় মেয়াদের প্রথম বছরেই তিনি সংবিধানের বিরুদ্ধে অত্যন্ত দায়সারা ও সামান্য বিবেচনাহীন এক স্বৈরাচারী শাসক হিসেবে উদ্ভটভাবে দেশ চালিয়ে গেছেন। মোদী- ২.০-এর সময়ে পাস হওয়া আইনের তালিকা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক যা সরকারের সর্বগ্রাসী ধ্বংসাত্মক পরিচয় বহন করে। তিনি বলেন, তিন তালাক বিল সংসদে পাস করা হয়েছে মুসলিম স্বামীদের অপরাধীকরণের পথে। এরপরে সরকার সংবিধানের ৩৭০ ধারা অনুচ্ছেদটি বাতিল করে জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যকে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিভক্ত ও হ্রাস করেছে। এছাড়াও উপত্যকায় গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত নেতাদের অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তার করে সেখানকার ইন্টারনেট এবং ফোন সবকিছু বন্ধ করে দিয়ে জনগণের অধিকারকে ক্ষুণ্ন করেছে
বলেও অভিযোগ করেন তিনি। এস কিউ আর ইলিয়াস বলেন, ইউ এ পি এ সংশোধন করে এটিকে আরও কঠোর করে তুলেছে। আরটিআই আইন দুর্বল করার জন্য এবং বিচার বিভাগের স্বাধীনতাকে ক্ষুণ্ন করার পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। পাশাপাশি সংসদে কোনও বিতর্ক বা আলোচনা সুষ্ঠু বা গণতান্ত্রিক ভাবে চলতে দেওয়া হচ্ছে না, মিডিয়াকে কার্যতঃ পুতুল পুতুল বানিয়ে রেখেছেন মোদি। প্রশাসনকে নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করার পাশাপাশি ঐতিহাসিক অযোধ্যা রায়কে সংখ্যা গরিষ্ঠ সম্প্রদায়ের পক্ষে নেওয়ার জন্য তিনি সুপ্রিম কোর্টকেও প্রভাবিত করেছেন। এদিন ওয়েলফেয়ার পার্টির ওই নেতা নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন। করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে অপরিকল্পিতভাবে লকডাউনের বিরুদ্ধেও সুর চড়ান ড. ইলিয়াস।