টিডিএন বাংলা ডেস্ক: দিল্লী টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন বা দুটার পক্ষ থেকে সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যেই উচ্চ শিক্ষা পর্যায়ের বার্ষিক পরীক্ষা প্রক্রিয়া শেষের ইউজিসির সংশোধিত নির্দেশিকাকে পক্ষপাতমূলক বলে অভিযোগ করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, দুটার সদস্যদের অভিযোগ, শিক্ষাক্ষেত্র কে বড়সর ব্যবসায় উন্নীত করার প্রচেষ্টা এই সিদ্ধান্তের লক্ষ্য। পাশাপাশি, এ ধরনের ওপেন বুক এক্সামিনেশন এর বাতিলের দাবি জানিয়েছে ওই সংগঠন। তাদের মন্তব্য অনলাইন পরীক্ষার সিদ্ধান্ত দেশের বৃহৎ সংখ্যক ছাত্র ছাত্রীদের ক্ষেত্রে পক্ষপাতমূলক। শিক্ষাক্ষেত্রকে বড়োসড়ো ব্যবসায় উন্নীত করার লক্ষ্যে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে।
প্রসঙ্গত ইউজিসির সংশোধিত নির্দেশিকা অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে অনুমতি দেয়া হয়েছে খাতা-কলমে বা অনলাইন মাধ্যমে কিংবা উভয় মাধ্যমের সাহায্যে পরীক্ষা আয়োজন করার বিষয়ে। এ বিষয়ে দুটো তরফ থেকে বলা হয়েছে ইতিমধ্যেই দিল্লি ইউনিভার্সিটির পক্ষ থেকে অনলাইন পরীক্ষার বিষয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের অভ্যস্ত করতে যে মকটেস্ট গুলি নেওয়া হয়েছিল তাতে প্রচুর গঠনমূলক ভ্রান্তি ধরা পড়েছে।
প্রসঙ্গত সম্প্রতি পাঞ্জাব এবং রাজস্থান সহ বেশকিছু রাজ্য সমস্ত পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আইআইটি বোম্বে সহ অন্যান্য কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলি ও এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
দুইটার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের সিদ্ধান্তটি ছাত্র-ছাত্রীদের মনে দ্বিমত তৈরি করছে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের হারে কোন রকম পরিবর্তন তৈরি হয়নি তা সত্ত্বেও এ ধরনের সিদ্ধান্ত লক্ষ লক্ষ ছাত্র ছাত্রীদের মানসিক এবং শারীরিক সুস্থতার বিষয়টিকে অগ্রাহ্য করে নেওয়া হয়েছে বলে মন্তব্য দুটার।