নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা, বীরভূম: এক তৃণমূল কর্মীর রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ালো এলাকায়। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের খয়রাশোল থানা পাঁচড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের রানী পাথর এলাকায়। পরিবারের অভিযোগ বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে খুন করা হয়েছে। ঘটনার তদন্তে খয়রাশোল থানার পুলিশ। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য সিউড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত তৃণমূল কর্মী হলেন শিশির বাউরী। বয়স ৪৫ বছর। বাড়ি খয়রাশোল থানার আমাজোলা গ্রামে। ওই তৃণমূল কর্মীর শনিবার সকালে গুলিবিদ্ধ রক্তাক্ত মৃতদেহ পার্শ্ববর্তী রানীপাথর গ্রামের সুরি পুকুর পাড় থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরিবারের দাবি গত শুক্রবার রাত্রে রানী পাথর গ্রামের কয়েকজন তাকে ডেকে নিয়ে যায়। সারারাত্রি পেরিয়ে সকাল হয়ে গেলেও শিশিরবাবু বাড়ি না ফেরায় পরিবারের লোকজন খোঁজখবর শুরু করে দেন। প্রথমে তারা শিশির বাবুকে যারা ডেকে নিয়ে গিয়েছিলেন তাদের কাছে গিয়ে খোঁজ করেন। যদিও তারা কোনো সদুত্তর দিতে পারেনি। এরপরই অন্যান্য গ্রামবাসী মাধ্যমে পরিবারের লোকজন জানতে পারেন ওই পুকুরপাড়ে তার মৃতদেহ পড়ে আছে। ঘটনার খবর যায় খয়রাশোল থানায়। পরিবারের লোকজন ও পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখেন শিশির বাউরী মাথার বাঁদিকে গভীর ক্ষতচিহ্ন। রক্তে ভেসে যাচ্ছে গোটা এলাকা। প্রাথমিক অনুমান গুলি করে খুন করা হয়েছে তাকে। বছরখানেক আগে বিজেপি ছেড়ে সে তৃণমূল কংগ্রেসের যোগ দিয়েছিল। খুনের কারণ নিয়ে ধন্দে পুলিশ থেকে পরিবারের লোকজন। পরিবারের পক্ষ থেকে খুনের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।