নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, কলকাতা: লকডাউন ভেঙে শহরে বামেদের বিক্ষোভ, গ্রেফতার হলেন সুজন চক্রবর্তী-বিমান বসু সহ একাধিক নেতা-কর্মী। দুর্নীতি, কালোবাজারি বন্ধ করে মানুষকে ন্যায্য রেশন পৌঁছে দিতে হবে। মিথ্যা নয়, সঠিক তথ্য চাই। রাজ্য জুড়ে নমুনা পরীক্ষা বাড়াতে হবে, সমস্ত তথ্য মানুষের সামনে আনতে হবে। এইসব দাবিতে শনিবার রেড রোডে প্রতীকী প্রতিবাদে বাম ও অন্যান্য দলসমূহের নেতৃবৃন্দ সামিল হন। আন্দোলনকারীদের গ্রেপ্তার করে এলাকা ফাঁকা করে পুলিশ। আন্দোলনকারীদের গ্রেপ্তার করতে গিয়ে যথেষ্টই বেগ পেতে হয় পুলিশকে। আন্দোলনকারীদের পুলিশভ্যানে তুলতে গিয়ে একপ্রকার ধস্তাধস্তি বেধে যায় পুলিশের সঙ্গে।

এদিন করোনার সঠিক তথ্যের দাবিতে প্রতীকী বিক্ষোভ করেন বামফ্রন্টের
নেতা-কর্মীরা। করোনা নিয়ে রাজ্য সরকার সঠিক তথ্য দিচ্ছে না, এমনটাই অভিযোগ তাদের। এখনো পর্যন্ত এরাজ্যে কতজন কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন বা কত জনের মৃত্যু হয়েছে তার সঠিক কোনো তথ্য দেয়া হয়নি সরকার পক্ষ থেকে। এই অভিযোগ তুলে শনিবার রেড রোডের সামনে প্রতীকী অবস্থান কর্মসূচি পালন করল বামফ্রন্ট। কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু, সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

বিমান বসু, সূর্যকান্ত মিশ্ররা এদিন অভিযোগ করে বলেন, লকডাউন এর জেরে রাজ্যের কয়েক কোটি মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। গভীর খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। সরকার ঘোষণা করলেও মানুষের কাছে খাদ্য পৌঁছাচ্ছে না। রেশনে চরম দুর্নীতি চলছে। এর প্রতিবাদে তাদের এই কর্মসূচি। সোশ্যাল ডিস্টেন্সিং বজায় রেখে কর্মসূচি পালন করা হয়েছে বলে জানান তাঁরা। আন্দোলনকারীদের রেডরোড থেকে হঠাতে যথেষ্টই বেগ পেতে হয় কলকাতা পুলিশকে। একসময় আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি বাধে। সেই সময় সোশ্যাল ডিসটেন্সিংয়ের কোন বালাই ছিল না। লকডাউন এর মধ্যে এ ধরনের আন্দোলনের কড়া সমালোচনা করেছে শাসক দল। যখন জমায়েত না করার কথা বলা হচ্ছে তখন এ ধরনের জমায়েত করে আন্দোলন কাম্য নয় বলে মত শাসকদলের।