জাতিসংঘ ঘোষিত নিরাপদ শহরে সার্ব কর্তৃক ইতিহাসের ভয়ঙ্কর মুসলিম গণহত্যা

প্রতীকী ছবি

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: ১৯ শতকের নয়ের দশকে ইউরোপের একমাত্র মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চল বসনিয়া পূর্বতন যুগোস্লাভিয়া থেকে পৃথক হয়ে একটি মুসলিম রাষ্ট্র তৈরির জন্য ব‍্যাপক গণ আন্দোলন শুরু হয়। অবশেষে ১৯৯২ খ্রিস্টাব্দে এক গণভোটের মাধ্যমে বসনিয়া যুগোস্লাভিয়া থেকে আলাদা হয়ে যায়। তৈরি হয় স্বাধীন বসনিয়ান মুসলিম রাষ্ট্র। কিছু ছোট বড়ো সংঘর্ষের পর ১৯৯৫ খ্রি: শুরু হয় মুসলিম ও স্লাব বা সার্বদের মধ্যে যুদ্ধ। এই যুদ্ধ বন্ধের জন্য রাষ্ট্রসংঘ এগিয়ে আসে। বসনিয়ান স্রেব্রেনিৎসা শহরটি জাতিসংঘ নিরাপদ এলাকা বলে ঘোষণা করে। শহরের নিরাপত্তার দায়িত্ব নেয় জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী বাহিনী। জাতিসংঘের আশ্বাসে সেখানে আশ্রয় নেয় বসনিয়ান মুসলিমরা। ইউরোপ মহাদেশের মধ্যে একমাত্র মুসলিম অধ্যুষিত দেশ বসনিয়াতে আজ থেকে ঠিক ২৬ বছর আগে ১৯৯৫ খ্রিস্টাব্দে ১১ ই জুলাই অর্থাৎ আজকের দিনে সংঘটিত হয় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইউরোপের সবচেয়ে বড় জঘন্যতম গণহত্যা।

এটি ছিল ইউরোপের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর জাতিগত শুদ্ধি অভিযান। শান্তিরক্ষী বাহিনীর সামনেই সার্ব বাহিনীর সদস্যরা বসনিয়ার স্রেবেনীৎসা শহর ও বেশ কিছু অংশ দখল করে নেয়।এরপর শুরু হয় গণহত্যার এক ভয়ঙ্কর অধ‍্যায়। বলা হয়ে থাকে এই গণহত্যায় ৮০০০ মুসলিমকে হত্যা করা হয়েছিল। যদিও কারও কারও মতে আসলে এর থেকে অনেক বেশি মুসলিমকে হত্যা করা হয়েছিল‌। এই ঘটনায় প্রায় অর্ধশত হাজার মানুষ উদ্বাস্তু হয়। জ্বালিয়ে দেওয়া হয় তাদের ফসলের ক্ষেত, ঘরবাড়ি, দোকানপাট, ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান। বাড়িতে বাড়িতে ঢুকে নারীদেরকে বার করে আনা হয় এবং তাদের সন্তান ও স্বামীর সামনেই তাদেরকে গণধর্ষণ করা হয়। তারপর নির্মমভাবে তাদের হত্যা করা হয়। এমন দৃশ্য দেখা গেছে যেখানে গর্ভবতী নারীর পেট থেকে সন্তান বার করে মায়ের সামনে তাকে হত্যা করা হয়েছে। আজ 26 বছর অতিক্রান্ত হয়ে গেছে এই হত্যালীলার অথচ আজও পর্যন্ত বসনিয়ার মুসলিম অধিবাসীরা সুবিচার পায়নি। হাতে গোনা কিছু অপরাধী ছাড়া বাকিরা ছাড়া পেয়ে যায়। অভিযোগ ডাচ শান্তিরক্ষী বাহিনীর সামনে এবং গ্রীক স্বেচ্ছাসেবী বাহিনীর সহায়তায় তারা এই মানবতাবিরোধী নিকৃষ্ট গণহত্যা চালায়। মানবাধিকারের রক্ষক হিসেবে নিজেকে তুলে ধরা আমেরিকা ইউরোপের দেশ গুলি এর কোনো প্রতিবাদ করেনি। তারা বসনিয়া বাসীকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসেনি। উল্টে লন্ডন জানায় তারা ইউরোপের বুকে বসনিয়ার মত মুসলিম দেশ কে কখনো সহ্য করবে না।