অনুসন্ধান অ্যাপটিটিউড টেস্ট-এ জুলাই মাসে রাজ্যে প্রথম হল মোস্তাকিমা মন্ডল

মোস্তাকিমা মন্ডল

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : ১৪ জুলাই ২০২১ : অনুসন্ধান কলকাতার পক্ষ থেকে প্রতিমাসে রাজ্যস্তরে দশম শ্রেণীর ছাত্র ছাত্রীদের জন্য অ্যাপটিটিউড টেস্ট এর ব্যবস্থা করা হয়। সম্পূর্ণ ব্যবস্থা হয় নিখরচায় এবং অনলাইনের মাধ্যমে।

জুলাই মাসে এই টেস্টে রাজ্যে প্রথম স্থান অধিকার করে মামুন ন্যাশনাল স্কুলের কৃতী ছাত্রী মোস্তাকিমা মন্ডল। আজ শনিবার ছিল অংশগ্রহণকারী সকল ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতি শুভেচ্ছা জ্ঞাপন এবং বিশেষ করে মোস্তাকিমা মন্ডলকে সম্বর্ধনা দেওয়ার অনুষ্ঠান। পূর্ব বর্ধমান জেলার নাদানঘাট থানা এলাকার প্রত্যন্ত খরসগ্রাম থেকে উঠে আসা বিজ্ঞানের অনুরাগী ছাত্রী মোস্তাকিমা মন্ডল। মামুন ন্যাশনাল স্কুলের বাংলা বিভাগের বিশিষ্ট শিক্ষক আবদুর রশিদ সাহেব জানান মোস্তাকিমা ক্লাসে অত্যন্ত মনোযোগী; সাবলীল ভাবে প্রশ্ন করতে পারে; শান্ত ও নিরীহ প্রকৃতির মেয়ে কিন্তু অত্যন্ত পরিশ্রমী। কথাও বেশ গুছিয়ে বলতে পারে। মোস্তাকিমা মন্ডল ভবিষ্যতে নিজেকে গবেষণার কাজে নিযুক্ত করতে চায়।

সংক্ষিপ্ত এই অনুষ্ঠানে অ্যাপটিটিউড টেস্ট নিয়ে বলতে গিয়ে ভারতীয় কৃষি অনুসন্ধান সংস্থার বিশিষ্ট বিজ্ঞানী অধ্যাপক মতিয়ার রহমান খান বলেন ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে কোন কোন ফিল্ডে দক্ষতা আছে তা বোঝা অত্যন্ত জরুরি এবং তা বুঝতে অ্যাপটিটিউড টেস্ট নির্ণায়ক ভূমিকা হয়ে উঠতে পারে। সে জন্যই অনুসন্ধান এর পক্ষ থেকে দশম শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য প্রতিমাসে এই আয়োজন। এই পরীক্ষা প্রতিমাসের কুড়ি তারিখে নেওয়া হয়। অভিজ্ঞ শিক্ষক-শিক্ষিকারা প্রস্তুত করেন প্রশ্নপত্র। অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকল অভিভাবক অভিভাবিকাদেরকে বিজ্ঞানী মতিউর রহমান খান বলেন তাঁদের সন্তানদেরকে আরও গুরুত্ব সহকারে এরকম একাধিক অ্যাপটিটিউড টেস্টে যাতে অংশ নেয়, সে কথা গুরুত্ব দিয়ে ভাবতে হবে। তিনি বিভিন্ন স্কুলের প্রধান শিক্ষক শিক্ষিকাদের উদ্দেশে বলেন, যত বেশি সংখ্যক ছাত্র-ছাত্রীরা এই ধরনের টেস্টে অংশ নেবে শিক্ষার মান এবং শিক্ষার্থীদের দক্ষতা কোনদিকে তা বোঝা সম্ভব হবে। এদিন উপস্থিত ছিলেন মামুন ন্যাশনাল স্কুল-এর সম্পাদক বিশিষ্ট শিক্ষক ও সমাজকর্মী কাজী মোহাম্মদ ইয়াসিন। তিনি অনুসন্ধানের এ ধরনের কার্যক্রমে অত্যন্ত সন্তোষ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, অনুসন্ধানের নানা ধরনের ইনোভেটিভ কাজের সঙ্গে পরিচিত তিনি দীর্ঘদিন ধরে। তাঁদের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছেন রাজ্যের গুণী শিক্ষক-শিক্ষিকারা। কোয়ালিটি এডুকেশন নিয়ে তাঁদের চিন্তা ভাবনা এবং বিভিন্নমুখী কার্যক্রম ছাত্র সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে। অ্যাপটিটিউড টেস্টের আহ্বায়ক গৌরাঙ্গ সরখেল এবং অনুসন্ধানের সম্পাদক সাহাবুল ইসলাম সকলকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং পরবর্তী মাসগুলোতে আরো বড় আকারের এ ধরনের প রীক্ষা করার ব্যাপারে সকলকে সহযোগিতা দানের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।