নন্দীগ্রামে প্রার্থী হয়ে গর্বিত, ২০০৭ সালের কথা মনে করিয়ে টুইটে কৃষকদের শ্রদ্ধা জানালেন মমতা

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: পূর্ব মেদিনীপুরের বিধানসভা কেন্দ্র নন্দীগ্রাম। ২০২১ রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনের সবচেয়ে আলোচিত কেন্দ্র। তার কারণ, এই মিলিগ্রাম কেন্দ্র থেকে এবার প্রার্থী হয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একসময় দলের বিশ্বস্ত সৈনিক শুভেন্দু অধিকারীকে সঙ্গে নিয়ে যে নন্দীগ্রাম থেকে ভূমিপুত্র কৃষকদের লড়াইকে হাতিয়ার করে ক্ষমতায় এসেছিল তৃণমূল, এখন দলের সেই “বিশ্বস্ত সৈনিক”রা অন্যদলের সৈনিক। আজ নন্দীগ্রাম দিবস। সাধারণত প্রতি বছর এই দিনটিকে কৃষক দিবস হিসেবে পালন করলেও এ বছর নন্দীগ্রাম দিবসের গুরুত্ব অন্য। রাজনীতির ময়দানে এক সময় যে নন্দীগ্রাম থেকে লড়াই করে উঠে এসেছিল তৃণমূল আজ ফের নিজেদের ক্ষমতা প্রমাণ করতে সেই নন্দীগ্রাম থেকেই প্রার্থী হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

১৪ মার্চ। ২০০৭ সালের এই দিনটিকে স্মরণ করে তাই মুখ্যমন্ত্রী টুইট করে লিখেছেন,”২০০৭ সালের এই দিনটিতে নন্দীগ্রামে গুলিতে মৃত্যু হয় নিরপরাধ গ্রামবাসীদের। অনেকের দেহ পাওয়া যায়নি। ইতিহাসে আজকের দিনটি একটি কালো দিন। নন্দীগ্রামে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাই।”

নন্দীগ্রাম দিবসের সেই ঐতিহাসিক দিনটির কথা স্মরণ করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আরো লিখেছেন,”নন্দীগ্রামের ভূমি আন্দোলনে যাঁরা প্রয়াত হয়েছিলেন, তাঁদের স্মরণে রেখে প্রতি বছর আমরা ১৪ মার্চ কৃষক দিবস পালন করি। সেই দিনই দেওয়া হয় ‘কৃষকরত্ন সন্মান’। কৃষকরা আমাদের গর্ব। তাঁদের উন্নতির জন্য আমাদের সরকার সর্বদা বদ্ধপরিকর।”

অধিকারী গড়ে নিজের দলের হয়ে সর্বোপরি নিজের জন্য ভোট চেয়ে নন্দীগ্রামের ভাই বোনদের উদ্দেশ্যে মমতা লিখেছেন,”শ্রদ্ধা জানাতে ও আমার নন্দীগ্রামের ভাই বোনদের উৎসাহে আমি এ বার নন্দীগ্রাম থেকেই ভোটে লড়ছি। এই ঐতিহাসিক স্থলে প্রার্থী হয়েছি আমি। বাংলা-বিরোধী শক্তির উল্টোদিকে দাঁড়িয়ে শহিদ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করার সুযোগ পাওয়া সত্যিই গর্বের।”