মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার মূল্যায়ন পদ্ধতি প্রকাশিত, নম্বর পছন্দ না হলে দেওয়া যাবে পরীক্ষা

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: করোনা পরিস্থিতির কারণে বাতিল হয়েছে মাধ্যমিক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা। কিন্তু কি ভাবে হবে ছাত্র ছাত্রীদের মূল্যায়ন? শুক্রবার বিদ্যাসাগর ভবনে যৌথ সাংবাদিক সম্মেলন করে সেই মূল্যায়ন পদ্ধতি স্পষ্ট করলেন মধ্যশিক্ষা পর্ষদের সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায় এবং উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি মহুয়া দাস।

মাধ্যমিক পরীক্ষার ক্ষেত্রে নবমের মার্কশিট, দশমের অভ্যন্তরীণ মূল্যায়নের ভিত্তিতে মাধ্যমিকের ফলাফল। ৫০-৫০ শতাংশ হারে ২০২১-এর মাধ্যমিকের মার্কশিট দেওয়া হবে। নবম শ্রেণীর মার্কশিট ও দশম শ্রেণীর অভ্যন্তরীন মূল্যায়ণকে সমান গুরুত্ব দিয়ে মার্কশিট দেওয়া হবে। এই মূল্যায়নে সন্তুষ্ট না হলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পরে বসা যাবে পরীক্ষায় এবং ওই পরীক্ষার ফলাফলকেই চূড়ান্ত বলে গণ্য করা হবে।

উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার ক্ষেত্রে জানানো হয়েছে,’২০১৯-র মাধ্যমিকের ৪টি বিষয়ের সর্বোচ্চ নম্বরের ৪০ শতাংশ, ২০২০-র একাদশের বার্ষিক পরীক্ষার ৬০ শতাংশ নম্বর, সেইসঙ্গে দ্বাদশের প্রজেক্ট-প্র্যাক্টিক্যালের নম্বর যুক্ত করে উচ্চমাধ্যমিকের মূল্যায়ন হবে। দ্বাদশের প্রজেক্টের ২০ নম্বর, প্র্যাক্টিক্যালের ৩০ নম্বর ধরে মূল্যায়ন হবে। মূল্যায়নে সন্তুষ্ট না হলে পরিস্থিতি স্বাভাবিকের পর বসা যাবে পরীক্ষায়। পরীক্ষায় বসলে, সেই পরীক্ষার ফলাফলই চূড়ান্ত হিসাবে বিবেচিত হবে।

পাশাপশি ২৩ জুনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলগুলিকে পরীক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় নম্বর জমা দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানান সংসদ সভাপতি মহুয়া দাস। সবকিছু ঠিক থাকলে জুলাই মাসের মধ্যেই পরীক্ষার ফল ঘোষণা হবে বলেও জানান তিনি।