অনলাইন নিউজ মিডিয়া,ওটিটি প্ল্যাটফর্ম এবং সোস্যাল সাইটগুলির ওপর এবার থাকবে সরকারের নিয়ন্ত্রণ

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: সরকার অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং নেটফ্লিক্স, অ্যামাজন প্রাইম ভিডিও এবং হটস্টারের মতো সামগ্রী সরবরাহকারী ওয়েবসাইটগুলিকে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের আওতায় আনার আদেশ জারি করেছে। রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন ইতিমধ্যেই এই আদেশ পত্রে স্বাক্ষর করেছেন। এবার থেকে সরকারি বিধি বিধান অনলাইন নিউজ পোর্টাল, ওটিটি প্লাটফর্ম এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম যেমন ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রামের সংবাদের উপরেও প্রযোজ্য হবে। এর পাশাপাশি অনলাইন প্ল্যাটফর্মে সম্প্রসারিত চলচ্চিত্র, ওয়েব সিরিজ, সংবাদ এবং কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স এর মোটো বিষয়গুলিও সরকারের এই বিভাগের অন্তর্ভুক্ত হবে। উল্লেখ্য এখনো পর্যন্ত অনলাইন নিউজ মিডিয়া বা ওয়েব পোর্টাল, ওটিটি প্লাটফর্ম ইত্যাদিতে সম্প্রসারিত তথ্য এবং ভিডিওর উপর কোন সরকারি নিয়ন্ত্রণ বা আইন লাগু ছিলনা।

এতদিন পর্যন্ত প্রেস কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া তত্ত্বাবধানে প্রিন্ট মিডিয়া এবং নিউজ ব্রডকাস্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (এনবিএ) নিউজ চ্যানেলগুলি পর্যবেক্ষণ করা হতো। ভারতের বিজ্ঞাপনের স্ট্যান্ডার্ড কাউন্সিলের তত্ত্বাবধানে বিজ্ঞাপনের ওপর নজরদারি করা হতো এবং সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ফিল্ম সার্টিফিকেশন (সিবিএফসি) এর মাধ্যমে চলচ্চিত্রের ওপর নিরীক্ষণ করা হতো।

সম্প্রতি একটি স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার দ্বারা অনলাইন নিউজ মিডিয়া এবং ওটিটি প্ল্যাটফর্ম গুলি নিয়ন্ত্রণের জন্য আবেদনের বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট কেন্দ্রের প্রতিক্রিয়া জানতে চায়।শীর্ষ আদালত কেন্দ্র, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রক এবং ভারতের ইন্টারনেট ও মোবাইল অ্যাসোসিয়েশনকে এ প্রসঙ্গে নোটিশ জারি করে।

শীর্ষ আদালতে দায়ের করা ওই পিটিশনে বলা হয়েছিল নিউজ পোর্টাল সহ বিভিন্ন ওটিটি প্ল্যাটফর্ম যেমন নেটফ্লিক্স হটস্টার অ্যামাজন প্রাইম ভিডিও ইত্যাদি খুবই সহজলভ্য। এধরনের ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলি সেন্সরবোর্ডে কোনরকম নিয়ন্ত্রণ ছাড়াই শিল্পীদের অবাধ ভাবে নিজেদের চলচ্চিত্র বা ওয়েব সিরিজ সম্প্রচার করার সুযোগ দিয়েছে।

কেন্দ্রের পক্ষ থেকে অপর একটি মামলায় শীর্ষ আদালতে এর আগে জানানো হয়েছিল যে, ডিজিটাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণ করার দরকার রয়েছে এবং আদালত ঘৃণা মূলক বক্তব্য নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে আদালত মিডিয়াকে গাইডলাইন দেওয়ার আগে এ বিষয়ে একটি কমিটি গঠন করুক। যারা গাইডলাইনের বিষয়গুলি স্থির করবে।

এর আগে, গতবছর তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকার বলেছিলেন যে সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রোধ করতে পারে এমন কোন পদক্ষেপ নেবে না, তিনি আরও বলেন যে শীর্ষস্থানীয় প্ল্যাটফর্মগুলির উপর একধরণের নিয়ন্ত্রণ রাখা উচিত, যেমন প্রিন্ট এবং ডিজিটাল মিডিয়ার পাশাপাশি চলচ্চিত্রের ওপরে রাখা হয়েছে।