ভারত ইসরাইলের উপর আরো বেশি চাপ সৃষ্টি করুক,দাবি ওয়েলফেয়ার পার্টির

Pic Collected from internet

নিজস্ব সংবাদদাতা, টিডিএন বাংলা: ভারত ইসরাইলের উপর আরো বেশি চাপ সৃষ্টি করুক,এমনটাই চাইছে ওয়েলফেয়ার পার্টি অফ ইন্ডিয়া। সংবাদ মাধ্যমকে পাঠানো এক প্রেস বিবৃতিতে দলটির কেন্দ্রীয় সভাপতি ড: কাসেম রসূল ইলিয়াস এই দাবি করেন। ওয়েলফেয়ার পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতি ইসরায়েল-ফিলিস্তিনি সংঘাতের স্থায়ী সমাধানের দাবি জানান। পাশাপাশি জাতিসংঘের সুরক্ষা পরিষদে ভারত ফিলিস্তিনের প্রতি সমর্থন জানিয়ে যে সদর্থক ভূমিকা রাখে তার প্রশংসা করেন।

ড: এসকিউআর ইলিয়াস বলেন, ইসরাইলের বর্বর কার্যক্রম রুখতে , জবরদখলের মাধ্যমে ফিলিস্তিনিদেরকে তাদেরই দেশ থেকে বাস্তুচ্যুত করে তাদেরকে নিশ্চিহ্ন করার অপপ্রয়াসকে থামাতে জাতিসঙ্ঘ, আমেরিকা, ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন এবং রাশিয়া সহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে গঠনমূলক ভূমিকা রাখতে হবে। তাদের উপর অর্থনৈতিক সহ অন্যান্য নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে হবে। এটি সময়ের দাবি।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে,প্রতিবেশী মুসলিম দেশটির উপর ইসরাইল কর্তৃক এই অতিকায় মানবধিকার লঙ্ঘন দেখার পরও তেমন কোনো উদ্বেগ প্রকাশ করতে দেখা যায়নি আরব দেশগুলির পক্ষ হতে। না তারা আন্তর্জাতিক মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করার কোনো চেষ্টা করেছে। বরং নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করে তারা । যার তীব্র নিন্দা জানান ওয়েলফেয়ার পার্টির কেন্দ্রীয় সভাপতি।

ড: কাসেম রসূল ইলিয়াস বলেন, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ভারত যে দাবিদাবা রাখে তার মধ্যে বলা হয়, অবিলম্বে ইজরাইল-ফিলিস্তিনের মধ্যে যুদ্ধ বন্ধ করতে হবে। উভয়পক্ষ চরম সংযম পালন করবে। ফিলিস্তিনের পূর্ব-জেরুজালেম সহ তার প্রতিবেশী এলাকার বর্তমান যে অবয়ব আছে তার রূপরেখা অক্ষুন্ন রাখতে হবে এবং ইজরাইল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে আবার আলাপ-আলোচনা শুরু করার জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরীর যাবতীয় প্রচেষ্টা করতে হবে।

ডঃ ইলিয়াস বলেন, সম্প্রতি রাজনৈতিক যে অগ্রগতি, সেখানে দ্বিজাতিতত্ত্ব ও “ফিলিস্তিনের ন্যায়সঙ্গত লড়াই” এর প্রতি ভারতের “বলিষ্ঠ” সমর্থনকে কুর্ণিশ। তবে ভারতকে ইসরাইলের উপর আরো বেশি চাপ সৃষ্টি করা দরকার যেহেতু দুই দেশের মধ্যে কৌশলগত এবং সামরিক সম্পর্ক যথেষ্ট মজবুত।

ডঃ ইলিয়াস তাঁর বিবৃতির শেষ অংশে বলেন, ইজরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতিনইয়াহুর বিরুদ্ধে আদালতে দুর্নীতির মামলা চলছে। তিনি দ্রুত দেশবাসীর আস্থা হারাচ্ছেন। ইজরায়েলি ভোটারদের দৃষ্টি সরানোর লক্ষ্যে এবং তাদের সমর্থন ফিরে পেতেই তিনি ফিলিস্তিনের উপর আক্রমণ করেছেন।

ইসরাইলের হামলার বিরুদ্ধে ওয়েলফেয়ার পার্টির ছাত্র যুব সংগঠন ফ্রাটারনিটি মুভমেন্টও সোচ্চার হয়েছে।