অগ্নিপথের বিক্ষোভে উত্তাল রাজস্থান, জয়পুর-দিল্লি জাতীয় সড়ক অবরোধ; রেলস্টেশনে ভাঙচুর, বাতিল কোটা-পাটনা ট্রেন

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: রাজস্থানের একাধিক জেলায় যুবকরা অগ্নিপথ প্রকল্পের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে চেষ্টা করলে পুলিশের সাথেও সংঘর্ষে লিপ্ত হয় বিক্ষোভকারীরা। রাজস্থানের জয়পুর, যোধপুর, আজমের, আলওয়ার সহ ছ’টি জেলায় বিক্ষোভ করছে আন্দোলনকারীরা। জয়পুরের বেনাদ রেলস্টেশনেও ভাঙচুর করা হয়েছে। একই সঙ্গে ভরতপুরে রোডওয়েজের বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বিহারেও ভয়াবহ বিক্ষোভের জেরে বাতিল করা হয়েছে কোটা-পাটনা এক্সপ্রেস।

শনিবার আলোয়ার জেলা থেকে বিক্ষোভ শুরু হয়। বেহরোরে, সেনাবাহিনীর জন্য প্রস্তুতি নেওয়া যুবকরা জয়পুর-দিল্লি জাতীয় মহাসড়ক অবরোধ করেছে। পুলিশ বাধা দিলে তারা পাল্টা পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছোঁড়ে বলে জানা গিয়েছে। আন্দোলকারীদের বাধা দিলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষও ঘটে। প্রায় এক ঘণ্টা ধরে অবরুদ্ধ থাকে মহাসড়ক।

মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ঝুনঝুনু জেলাতেও ছাত্ররা রাস্তা অবরোধ করার চেষ্টা করে। এখানকার চিরাওয়া শহরে, ছাত্রদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয় এবং রেলপথ অবরোধ করার চেষ্টা করা হয়।

রাজস্থানের বিভিন্ন জেলায় হওয়ায় বিক্ষোভের আগুনের রেশ পৌঁছেছে রাজধানী জয়পুরেও। এখানকার বেনাদ স্টেশনে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় শিক্ষার্থীরা। জয়পুর ও যোধপুরেও
অগ্নিপথ প্রকল্পের বিরুদ্ধে ক্রোধ প্রকাশ করেছে যুবকরা। জয়পুরের সাঙ্গানারে ছাত্ররা একটি সমাবেশের আয়োজন করে কেন্দ্র সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান দেয়। এরপর বিকেলে বেনাদ রেলস্টেশনে হঠাৎ করে বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থীরা ঢুকে ভাঙচুর চালায়। ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে চেষ্টা করে পুলিশ। পাশাপাশি, যোধপুরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদেরও আটক করে পুলিশ।

রাজস্থানে, কেন্দ্রের অগ্নিপথ প্রকল্পের বিরুদ্ধে টানা চতুর্থ দিন বিক্ষোভ প্রদর্শন করছে আন্দোলনকারী যুবকরা। জয়পুরেও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ছাত্ররা।
আন্দোলকারীদের দাবি, অগ্নিপথ প্রকল্প দেশের তরুণদের স্বার্থে নয়। সরকারকে এই প্রকল্প ফিরিয়ে নিতে হবে অন্যথায় সহিংস আন্দোলন করা হবে। এর দায় থাকবে সরকারের।