দিল্লির নেতারা যতবার আসবে আমি তাঁর চেয়ে ৫ গুণ বেশি আসব,ত্রিপুরার মাটিতে দাঁড়িয়ে বললেন অভিষেক

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : ‘এখানাকার মানুষ একটা সরকারকে ভোট দিয়েছে, পাঁচবছরের জন্য কাজ করতে দিয়েছে। মানুষের দাবি দাওয়া নিয়ে কাজ করুক। আমরা যদি ঘর ভাঙতে যাই, তাহলে একমাস লাগবে সরকার ফেলতে। কিন্তু সেটা করব না। ঘর ভাঙিয়ে বা দল ভেঙে নতুন দল গড়ায় বিশ্বাসী নয় তৃণমূল। এদিন সাংবাদিক বৈঠকে স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক আরও জানিয়েছেন, ‘আমি এখানে আসার আগে আইপ্যাকের ২৩ কর্মীকে নজরবন্দি করেছে। তৃণমূল কংগ্রেস পা রাখেনি তাতেই এত হতাশা, এত জ্বালা। আইপ্যাক কর্মীরা সমীক্ষা করছে। তাদের গৃহবন্দি করে দেওয়া হয়েছে। হোটেলের ম্যানেজারকে ধমকাচ্ছে। আপনার চমকানি, ধমকানি চলবে না। যাঁরা সিপিএমকে হারিয়ে এক বুক আকাঙ্ক্ষা নিয়ে বিজেপি সরকার প্রতিষ্ঠা করেছিল, তাঁরা বুঝতে পারছে খাল কেটে কুমির এনেছে। ত্রিপুরায় ক’টা কর্মসংস্থান হয়েছে? বেকারত্ব কেন বাড়ছে? নারী সুরক্ষায় কেন পিছিয়ে? ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী জবাব দেবেন না? ত্রিপুরায় ডবল ইঞ্জিন সরকার বলেছিল। আসলে সবটা ডবল ভাঁওতা।’

বিপ্লব দেবের সরকারকে বিঁধে তাঁর প্রশ্ন, মুখ্যমন্ত্রী হাসির খোরাক হয়ে দাঁড়িয়েছে। কখনও বলছে মহাভারতের সময় ইন্টারনেট ছিল। তাহলে রাজ্যের অবস্থা কী হবে? সারা দেশে বিজেপিকে কেউ ল্যাজেগোবরে করে হারাতে পারে সেই দলের নাম তৃণমূল কংগ্রেস। নেত্রীর নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিল্লির নেতারা যতবার আসবে আমি তাঁর চেয়ে ৫ গুণ বেশি আসব। ওরা মাসে দুবার আসলে আমি দশবার আসব। আবার দু’সপ্তাহ পর আসব। বাঁশ, লাঠি জোগাড় করে রাখুন। আগামী ১৫ দিন পর আবার আসব। ক্ষমতা থাকলে আটকে দেখান।’