শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের প্রথম মহিলা বিচারপতি ফাতিমা বিবি

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের প্রথম মহিলা বিচারপতি ফাতিমা বিভি। আজ বৃহস্পতিবার কেরালার কোল্লামের একটি বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু বরণ করেন তিনি৷ মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৬ বছর। ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের ইতিহাসে প্রথম মহিলা বিচারক হিসাবে পরিচিত প্রাক্তন বিচারপতি এম. ফাতিমা বিভি ছিলেন ট্রেইলব্লাজিং আইনজ্ঞ।

১৯২৭ সালে কেরালার পাথানামথিট্টা জেলায় জন্মগ্রহণকারী ফাতিমা বিভির বর্ণাঢ্য যাত্রা শুরু হয়েছিল তিরুবনন্তপুরমের মহিলা কলেজ থেকে রসায়নে স্নাতক করার মাধ্যমে। সামাজিক নিয়ম-নীতির দ্বারা নিরুৎসাহিত হয়ে তিনি তারপরে সরকারি আইন কলেজে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেন। এই সময়ে তিনি তাঁর সাফল্যের জন্য স্বর্ণপদক লাভ করেন। প্রথমে তিনি আইনজীবী হিসাবে কর্মজীবন শুরু করে ছিলেন। এরপর ন্যায়বিচারের প্রতি তার আগ্রহ ও দায়বদ্ধতা কারণে তাকে জেলা আদালতে বিচার বিভাগীয় পরিষেবার পদে নিয়োগ দেয়া হয়। দীর্ঘ আট বছর তিনি ওই পদে দায়িত্ব পালন করেন।

এরপর ফাতিমা বিভিকে ১৯৭৪ সালে জেলা দায়রা জজের মর্যাদাপূর্ণ পদ নিয়োগ দেওয়া হয়। ১৯৮৩ সালে তিনি কেরালা হাইকোর্টের বিচারক হিসেবে নিযুক্ত হয়ে আরেকটি মাইলফলক অর্জন করেন। ন্যায়বিচার, ন্যায্যতা এবং আইনের শাসনের প্রতি তার অটল প্রতিশ্রুতির কারণে বিচার বিভাগে তার মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। অবশেষে ১৯৮৯ সালে ফাতিমা বিভি সুপ্রিম কোর্টের প্রথম মহিলা বিচারপতি হিসাবে নিযুক্ত হন। দেশের সর্বোচ্চ আদালতে তার মেয়াদ যুগান্তকারী রায় এবং সংবিধানে বর্ণিত নীতিগুলিকে সমুন্নত রাখার অঙ্গীকার দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছিল।

তবে তিনি শুধু বিচারব্যবস্থাতেই তার অবদান রাখেননি, পাশাপাশি তিনি তামিলনাড়ুর গভর্নর হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। একজন মহিলা হিসাবে লিঙ্গ প্রতিবন্ধকতার প্রাচীর ভেঙে খ্যাতির শীর্ষে পৌঁছে তিনি নিজেই একটা ইতিহাস হয়ে আছেন। উপরন্তু, তিনি জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের একজন সদস্য হিসাবে তার দক্ষতা প্রদান করেন। দেশে ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার এবং মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সারাজীবন ধরে অক্লান্ত পরিশ্রম করে গিয়েছেন।