মৃত্যুর মুখে এক বোন! ফোন পেয়েই বিরল গ্রূপের ‘এ’ নেগেটিভ রক্ত দিতে ছুটলেন হাসিবুল

নিজস্ব প্রতিনিধি, টিডিএন বাংলা, ডোমকল:মৃত্যুর মুখে রোগিনী। চাই বিরল গ্রূপের রক্ত। খবর পেয়েই বিরল গ্রূপের ‘এ’ নেগেটিভ রক্ত দিতে হাসপাতালে ছুটলেন হাসিবুল নামে এক যুবক। রক্ত পেয়ে আপাতত স্বস্তিতে রোগিনী ও তার পরিবার। জানা গেছে, রক্ত সঙ্কটে ভুগছিলেন মুর্শিদাবাদ বহরমপুর থানার আদিভাগা গ্রামের পূজা হালদার । পরিজনেরা শুক্রবার সকাল দশটা নাগাদ তাকে ভর্তি করেন বহরমপুর মেডিকেল কলেজে।

ডাক্তার জানান, ইমার্জেন্সি দুই ইউনিট রক্ত লাগবে। গ্রূপ ‘এ’ নেগেটিভ। বিরল ওই রক্তের ডোনার পাওয়া মুশকিল। কোথায় মিলবে! ভেঙে পড়েন পরিবারের লোকজন। নিরুপায় হয়ে রিকুইজিসন ফর্ম হাতে এদিক ওদিক ছোটাছুটি শুরু করেন বাড়ির লোক। তখন সন্ধ্যা প্রায় ৭ টা। শেষমেষ ‘মানব কল্যানে রক্তদান’ সংস্থার সভাপতি শাহিন মন্ডল এর সঙ্গে যোগাযোগ করে তারা। সঙ্গে সঙ্গে ডোনারের খোঁজ শুরু করেন তিনি। বিরল রক্তের ডোনারের তালিকা ধরে ধরে বিভিন্ন জনের সাথে কথা বলেন। ফোন করেন ডোমকল থানার মোহনপুর গ্রামের হাসিবুল মোল্লা কে।

হাসিবুল জানান, ‘রাত ৮ টায় শাহিন মন্ডলের ফোন দেখেই বুঝে নিয়েছিলাম কারও আমার গ্রূপের রক্তের প্রয়োজন। সঙ্গে সঙ্গে রাজি হয়ে যায়। একটা গাড়ি ভাড়া করে পৌঁছে যায় বহরমপুর মেডিকেল কলেজে তখন রাত দশটা। রোগীর মায়ের হাতে রক্তটা তুলে দিয়ে বাড়ি ফিরি।’ আর এভাবেই অন্যের জীবন বাঁচাতে কখনো মুর্শিদাবাদ,কখনো নদীয়া, এবং বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন হাসপাতালে ছুটে যান হাসিবুল। এটা তার সপ্তম রক্তদান। আর মানবতার এই মহান কাজে মানুষের বিপদে পাশে থাকার জন্য বাবা-মা তাকে সব সময় উৎসাহ দেন বলে জানিয়েছেন তিনি।