অজুখানা সিল করেই চলবে নমাজ, জ্ঞানবাপী মসজিদ মামলায় নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: জ্ঞানবাপী মসজিদ চত্বরের ভেতরে অজুখানা বা জলাশয়ে যেখানে শিবলিঙ্গ পাওয়া গেছে সেই এলাকাটি সিল করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল উত্তর প্রদেশের একটি আদালত। এবার সেই রায়কেই বহাল রাখার নির্দেশ দিল শীর্ষ আদালত। একইসঙ্গে, সুপ্রিমকোর্ট জানিয়েছে, মসজিদে নমাজ বন্ধ রাখা যাবে না। এক সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দিয়েছে যেখানে শিবলিঙ্গ পাওয়া গিয়েছিল সেই স্থানটি সিল করে রাখতে হবে। এদিন শীর্ষ আদালত জেলাশাসককে নির্দেশ দিয়েছে, ওই এলাকায় যেন কাউকে প্রবেশ করতে না দেওয়া হয়। তবে, মসজিদে নমাজ ও অন্যান্য ধর্মীয় আচরণ বন্ধ করা যাবে না বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে, মসজিদে কোনভাবেই মুসলিমদের প্রবেশের সংখ্যা বেঁধে দেওয়া যাবে না বলেও জানিয়েছে শীর্ষ আদালত।

প্রসঙ্গত, জ্ঞানবাপী মসজিদ চত্বরে ভিডিওগ্রাফি করতে যাওয়ার তৃতীয় দিনে ওই শিবলিঙ্গের সন্ধান পায় আদালত নির্দেশিত বিশেষ টিম। ওই বিশেষ টিমের অংশ, আইনজীবী হরিশংকর জৈন তড়িঘড়ি এই বিষয়ে বারাণসি আদালতে আবেদন করেন। আদালতকে তিনি জানান, মসজিদের জলাশয় একটি শিবলিঙ্গ পাওয়া গেছে। এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণ। সিআরপিএফ কমান্ড্যান্টকে জায়গাটি সিল করার নির্দেশ দেওয়ার দাবিও করেন ওই আইনজীবী। এর পরিপ্রেক্ষিতে সিনিয়র ডিভিশন জজ রবিকুমার দিবাকর ডিএমকে অবিলম্বে ওই জায়গাটি সিল করার নির্দেশ দেন। সোমবার তিন দিন ব্যাপী চলতে থাকা বারানসির জ্ঞানবাপী মসজিদের জরিপ প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। সার্ভের পর হিন্দু পক্ষের আইনজীবী ডক্টর শোভনলাল মসজিদের বাইরে এসে দাবি করেন,”…যা খোঁজা হচ্ছিল তার থেকে বেশি পাওয়া গেছে। এবার পশ্চিমের দেয়ালের কাছে ৭৫ ফুট দীর্ঘ ৩০ ফুট চওড়া এবং ১৫ ফুট উঁচু যে ধ্বংসাবশেষ আছে তা জরিপের দাবি জানানো হবে।”

মুসলিম পক্ষের আইনজীবী জরিপ শেষে বাইরে এসে হিন্দু পক্ষের আইনজীবীর ওই দাবি খারিজ করে দেন। তিনি বলেন, ভিতরে এমন কিছু পাওয়া যায়নি। আমরা সার্ভেতে সন্তুষ্ট। হিন্দু পক্ষের আইনজীবীর ওই দাবি খারিজ করা হয়েছে মসজিদ কমিটির পক্ষ থেকেও। মসজিদ কমিটির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, জ্ঞানবাপি মসজিদে পাওয়া বস্তুটি ‘শিবলিঙ্গ’ নয় বরং অজুর জন্য যে পানি আসে সেই পানির ফোয়ারা। উল্লেখ্য, বারানসি আদালতের ওই নির্দিষ্ট জায়গা সিল করে দেওয়ার বিষয়ে ইতিমধ্যেই তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল’ বোর্ড।এআইএমপিএলবি(অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল’ বোর্ড)-এর সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ খালেদ সাইফুল্লাহ একটি প্রেস নোটে জানিয়েছেন, “বেনারসের জ্ঞানবাপী মসজিদ মসজিদ ছিল ও তা থাকবে। একে মন্দির বলে দাবি করা সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ তৈরি করার একটি ষড়যন্ত্র ছাড়া আর কিছুই নয়। এই দাবি ঐতিহাসিক সততার পরিপন্থী।“