ঈদে ৩ দিন ছুটি ঘোষণা বিহারে, বাংলায়ও ঈদের ছুটি বৃদ্ধির দাবি উঠছে মুসলিম সমাজে

নিজস্ব সংবাদ, টিডিএন বাংলা: বিহারে ঈদ উপলক্ষে ৩ দিন স্কুল ছুটি থাকলে পশ্চিমবঙ্গের মতো রাজ্যে যেখানে অনেক বেশি মুসলিমের বাস সেখানে ১ দিন ছুটি থাকবে কেন? এমনই প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। বাংলায়ও পুনরায় ঈদের ছুটি বৃদ্ধির দাবি উঠছে মুসলিম সমাজে। বিহারে মুসলিমদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব ২টি ঈদ উপলক্ষেই ৩ দিন করে স্কুল ছুটি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। তবে রাজ্যের সমস্ত স্কুলের ক্ষেত্রে নয় বরং শুধু উর্দু মিডিয়াম স্কুলগুলিই এই ছুটি পাবে। কারণ বিহারে মুসলিমদের মধ্যে বড় একটা অংশ উর্দুভাষী মুসলিম। আর সেখানে যে উর্দু মিডিয়াম স্কুলগুলি রয়েছে, তার পড়ুয়াদের প্রায় ১০০ শতাংশই মুসলিম।

নীতিশ কুমারের সরকার ওই ঘোষণায় জানিয়েছে, ঈদ-উল-ফিতর ও ঈদ-উল-আযহাতে ছুটি বাড়িয়ে ৩ দিন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। তবে অন্যান্য স্কুলের শিক্ষার্থীদের জন্য আগের মতোই শুধু ১ দিন ছুটি থাকবে। পাশাপাশি ওই ঘোষণায় জানান হয়েছে, রাখি বন্ধন ও জন্মাষ্ঠমীর ছুটি এবার থেকে বাতিল করা হয়েছে। আর দীপাবলি, ছট ও দূর্গা পূজার ছুটি কিছুটা কমানো হবে। সামনেই লোকসভা নির্বাচন তার আগেই নীতিশ সরকারের এই সিদ্ধান্ত বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

এই ঘোষণার পরপরই পশ্চিমবঙ্গের মুসলিম সমাজের মধ্যেও শুরু হয়েছে গুঞ্জন। দীর্ঘ দিন ধরেই বিভিন্ন মুসলিম সংগঠন ঈদের দিনে ছুটি বাড়িয়ে ৩ দিন করার দাবি জানিয়ে আসছে। কিন্তু এখনও পর্যন্ত সেই দাবিকে গুরুত্ব দেয়নি রাজ্য সরকার। এই প্রসঙ্গে সারা বাংলা সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান সাহেব বলেন, “বিহার সরকারের এই সিদ্ধান্ত পশ্চিমবঙ্গকেও পথ দেখাবে এই আশা করছি। তবে শুধু উর্দু মিডিয়াম স্কুলগুলিতে ছুটি না দিয়ে সমস্ত স্কুলে ছুটি ঘোষণা করা উচিত।”

উল্লেখ্য, চাকরিজীবী ও শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে ঈদের ছুটি ৩ দিন করার দাবি দীর্ঘ দিন ধরেই করে আসছেন মুসলিম সমাজের মানুষরা।