ব্রিটিশ সরকারের ‘সন্ত্রাসী’ তালিকায় নাম ফিলিস্তিনের হামাসের! তীব্র প্রতিক্রিয়া হামাসের

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : ফিলিস্তিনের মুসলিমদের কাছে ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হিসাবে পরিচিত হামাসকে ‘সন্ত্রাসী গোষ্ঠী’ বলে ঘোষণা করলো ব্রিটিশ সরকার। ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিতি প্যাটেল শুক্রবার লন্ডনে দেওয়া এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘অত্যাধুনিক সমরাস্ত্র হাতে থাকার পাশাপাশি সন্ত্রাসীদের প্রশিক্ষণ দেয়ার মতো এমন সব উল্লেখযোগ্য উপকরণ হামাসের কাছে রয়েছে। যার কারণে এটিকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী বলে অভিহিত করা যায়।’ পাশাপাশি ইসরাইলের সঙ্গে সহমত পোষণ করে ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘ঠিক এ কারণে আমি হামাসের সব ধরনের তৎপরতা পুরোপুরি নিষিদ্ধ করার নির্দেশ দিয়েছি।’ হামাস নিষিদ্ধ হলে ব্রিটেনে সংগঠনটির সমর্থকরা ১৪ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের সম্মুখীন হতে পারেন।

ব্রিটিশ সরকার ‘সন্ত্রাসী’ হিসাবে হামাসকে অভিহিত করায় তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ফিলিস্তিনের ইসলামি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস। হামাসের একটি বিবৃতিতে ব্রিটিশ সরকারের সিদ্ধান্তে দুঃখ প্রকাশ করে বলেছে, “ফিলিস্তিন সংকটের ব্যাপারে ব্রিটেন তার অতীতের ভুল নীতির পুনরাবৃত্তি করে যাচ্ছে। ব্রিটিশ সরকার ফিলিস্তিনি জনগণের অধিকার লঙ্ঘনের ঐতিহাসিক ভুল সংশোধন ও ক্ষমা চাওয়ার পরিবর্তে নির্যাতিত ফিলিস্তিনিদের সংগঠনকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী বলে অভিহিত করেছে। পাশাপাশি বিবৃতিতে হামাস এটাও জানিয়ে দিয়েছে যে, তারা এ ধরনের ঘোষণায় ভয় পায় না বরং যেকোনো মূল্যে ফিলিস্তিনি জনগণের স্বার্থ রক্ষায় তারা বদ্ধপিরকর। একইসঙ্গে ব্রিটেন ও জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়ে হামাস বলেছে, ফিলিস্তিন প্রসঙ্গে দ্বৈত নীতি পরিহার করুন। ব্রিটেনসহ সব দেশের উচিত আন্তর্জাতিক আইন মেনে চলা।

ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রিতি প্যাটেলের এই ঘোষণার পরপরই ইহুদি রাষ্ট্র ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেত ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়ায়ির লাপিদ তাৎক্ষণিকভাবে ব্রিটিশ সরকারের এই ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছেন। বেনেত একটি টুইট করে বলেন, “হামাস একটি উগ্র ইসলামি সংগঠন যারা ইসরাইলকে লক্ষ্য করে হামলা চালায় এবং ইসরাইলকে ধ্বংস করতে চায়। হামাসকে সন্ত্রাসী ঘোষণা করার জন্য আমি আমার বন্ধু [ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী] বরিস জনসনকে ধন্যবাদ জানাই।” অন্যদিকে ইসরাইলের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইয়ায়ির লাপিদ তার টুইট করেন, “লন্ডনের পক্ষ থেকে হামাসকে সন্ত্রাসী ঘোষণা ইসরাইলসহ মিত্র দেশগুলোর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ধারাবাহিক প্রচেষ্টার ফসল। এর ফলে ব্রিটেনের সঙ্গে ইসরাইলের সম্পর্ক আরো শক্তিশালী হবে।”

ফিলিস্তিনের প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসকে সন্ত্রাসী ঘোষণা করায় ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির-আব্দুল্লাহিয়ান ব্রিটিশ সরকারের প্রতি তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। শুক্রবার টুইটারে পোস্ট করে তিনি বলেছেন, “বাস্তবতাকে বিকৃত করে এবং প্রকৃত চিত্রকে উল্টো করে তুলে ধরে ফিলিস্তিনি জনগণের অধিকার লঙ্ঘন করা যাবে না। ফিলিস্তিন সংকটের একমাত্র রাজনৈতিক সমাধানসূত্র হচ্ছে, ফিলিস্তিনি ভূখণ্ডের মূল অধিবাসীদের [মুসলিম, খ্রস্টান, ইহুদি] মধ্যে তাদের ভাগ্য নির্ধারণের ব্যাপারে গণভোটের আয়োজন করা।”