৯৮ বছরে প্রয়াত কিংবদন্তি বর্ষীয়ান বলিউড অভিনেতা মুহাম্মদ ইউসুফ খান ওরফে দিলীপ কুমার

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: প্রয়াত বর্ষীয়ান বলিউড অভিনেতা দিলীপ কুমার। বুধবার সকাল ৭.৩০ নাগাদ খর হিন্দুজা হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর। দীর্ঘদিন ধরে শারীরিক অসুস্থতায় ভুগছিলেন তিনি।

 

চলচ্চিত্র জগতে ‘ট্রাজেডি কিং’ নামেই পরিচিত দিলীপকুমার। ১৯৪৪ সালে ‘বম্বে টকিজ’-এর ব্যানারে ‘জোয়ার ভাটা’ দিয়ে অভিনয় জগতে পা রেখেছিলেন। তারপর দিয়ে গিয়েছেন একের পর এক হিট ছবি। পাঁচ দশক ধরে ৬০ টি ছবিতে অভিনয় করেছিলেন দিলীপ কুমার।
তাঁর উল্লেখযোগ্য ছবিগুলির মধ্যে অন্যতম ‘আন্দাজ’, ‘মুঘল-এ-আজম’, ‘গঙ্গা যমুনা’, ‘দেবদাস’। ১৯৭৬ সালে সেলুলয়েড থেকে পাঁচ বছরের বিরতি নেন দিলীপ কুমার। ১৯৮১ সালে ‘ক্রান্তি’ সিনেমার হাত ধরে কামব্যাক করেন তিনি।

১৯২২ সালের ১১ ডিসেম্বর ব্রিটিশ ইন্ডিয়ার পেশোয়ারে জন্মগ্রহণ করেন দিলীপ কুমার। তখন তাঁর নাম ছিল মহম্মদ ইউসুফ খান। তাঁর বাবা পেশায় ফল ব্যবসায়ী ছিলেন। পরে পেশোয়ার থেকে পুণেতে চলে আসেন দিলীপ কুমার। চল্লিশের দশকে বলিউডে পা রাখেন এই কিংবদন্তী অভিনেতা। ১৯৬৬ সালে অভিনেত্রী সায়রা বানুর সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধেন তিনি।

সায়রাবানু উনার দীর্ঘ অসুস্থতায় প্রতিনিয়ত আপডেট জানাতেন বলিউড ও ফলোয়ারদের উদ্দেশ্যে। স্ত্রী সায়রা বানুর শেষ ট্যুইট ছিল, “দিলীপ কুমার সাব ভাল আছেন। তাঁর শারীরিক অবস্থা স্থিতীশীল। তাঁকে এখনও ICU-তেই রেখে চিকিৎসা চলছে। আমরা তাঁকে বাড়ি নিয়ে যেতে চাই তাড়াতাড়ি, তবে চিকিৎসকরা কী পরামর্শ দেন, তার অপেক্ষায় রয়েছি। অনুরাগীদের সকলের প্রার্থনা কামনা করছি। আমরা খুব তাড়াতাড়ি ফিরব।” কিন্তু ফেরা হল না।

এর আগেও গত ৬ জুন হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছিল দিলীপকে। ফুসফুসে অতিরিক্ত ফ্লুইড জমার সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। তবে সফল প্লিউরাল অ্যাসপিরেশন প্রক্রিয়ায় তাঁর সেই সমস্যার সমাধান হয়েছিল। ৫ দিন পরে হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে যান দিলীপ।