নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বিদেশি সেনাদের আফগানিস্তান ত্যাগ করতে বলে হুমকি তালিবানের

টিডিএন বাংলা ডেস্ক :  নির্ধারিত সময়ের মধ্যে মার্কিনসহ সকল বিদেশি সেনাকে অবশ্যই আফগানিস্তান ছেড়ে চলে যেতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে তালেবান। সময় শেষ হয়ে যাওয়ার পরও যদি কোনো সেনা দেশটিতে অবস্থান করেন, তাহলে দখলদার হিসেবে তারা লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হবে তালিবান সরকারের। বিবিসির সঙ্গে সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেছেন সশস্ত্র গোষ্ঠীটির মুখপাত্র সোহাইল শাহীন।

ন্যাটোর ঠিক করা আগামী সেপ্টেম্বরের শেষ সময়সীমার পরও আমেরিকা একহাজার সেনা রেখে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে চাইলে এইরূপ বার্তা দেয় তালিবান মুখপাত্র। আমেরিকা আফগানিস্তানে এক হাজার সৈন্য রাখতে চায় মূলত কূটনৈতিক মিশন এবং কাবুলের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরকে সুরক্ষা দেবার জন্য।

আফগানিস্তানে দীর্ঘ ২০ বছর ধরে সামরিক মিশন পরিচালনা করে আসছে সামরিক জোট ন্যাটো ও মার্কিন বাহিনী। এপ্রিলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ঘোষণা দেন যে সেনা প্রত্যাহারের , আগামী ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সকল সেনা প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে। এবং গত মে থেকে এ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

বিদেশি সেনাদের চলে যাওয়ার মধ্যেই আফগানিস্তানে সহিংসতা ক্রমশ বাড়ছে বলে আলোচোনা আন্তজার্তিক মিডিয়ায়। ইতিমধ্যে বিভিন্ন জেলা নিজেদের দখলে নিয়েছে তালিবান। এমতাবস্থায় দেশটিতে আবারও তালিবানি শাসন চালু হতে পারে বলে শঙ্কা জেগেছে।
তবে এ দাবি অস্বীকার করেছেন তালিবানি মুখপাত্র। তিনি বলেন, সামরিক শক্তি দিয়ে কাবুল দখল করা তাদের নীতি নয়। তালিবান চায়, প্রত্যাহার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার পর কাবুলে যেন আর কোনো বিদেশি সেনা ও সামরিক ঠিকাদার না থাকে।

সোহাইল শাহীন বলেন, কূটনীতিক, এনজিওকর্মী এবং অন্যান্য বিদেশি সাধারণ নাগরিকরা কখনোই তালেবানের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হবে না। তাই অতিরিক্ত নিরাপত্তার প্রয়োজন নেই।
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে স্বাক্ষরিত দোহা চুক্তির বাইরে গিয়ে কোনো বিদেশি সেনাকে যদি আফগানিস্তানে থেকে থাকে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কি স্ট্র্যাটেজি হবে সে বিষয়েই এদিন কথা বলেন তালিবান মুখপাত্র।

তালিবান নেতৃত্বের মতে বহু জেলা তাদের নেতৃত্বে আসছে আলোচনার মাধ্যমে এবং লড়াইয়ে আফগান সৈন্যদের অনীহার ফলশ্রুতিতে।