কন্দহরে সংঘর্ষের মাঝে পড়ে নিহত পুলিৎজার জয়ী চিত্রসাংবাদিক দানিশ সিদ্দিকি

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : চিত্র সাংবাদিক হিসেবে আফগানিস্তানে গিয়েছিলেন খবর ও ছবি সংগ্রহে। পাঠাচ্ছিলেন খবর, ছবিও তার মধ্যেই কান্দাহারের স্পিন বলডাক জেলায় সংঘর্ষ চলাকালীন মৃত্যু হল সংবাদসংস্থা রয়টার্সের চিত্র সাংবাদিক দানিশ সিদ্দিকির। কন্দহরের অশান্ত পরিস্থিতির ছবি তুলতে দিন কয়েক আগেই সেখানে গিয়েছিলেন দানিশ, আফগান সেনাবাহিনীর সঙ্গে থেকে কাজ করছিলেন তিনি। তাঁর মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন ভারতে নিযুক্ত আফগানিস্তানের রাষ্ট্রদূত ফরদি মামুন্দজাই।

টুইটবার্তায় তিনি বলেন, ‘গত রাতে কান্দাহারে আমার বন্ধু দানিশ সিদ্দিকির মৃত্যুর খবরে আমি শোকাহত। আফগান বাহিনীর ঘেরাটোপে ছিলেন ভারতীয় সাংবাদিক এবং পুলিৎজার পুরস্কারজয়ী। কাবুলে যাওয়ার দু’সপ্তাহ আগে ওঁনার সঙ্গে দেখা করেছিলাম আমি। তাঁর পরিবার এবং রয়টার্সের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি।

আফগানিস্তানের সংবামাধ্যম টোলো নিউজ জানিয়েছে, কান্দাহারের স্পিন বলডাক জেলায় সংঘর্ষ চলাকালীন মৃত্যু হয়েছে দানিশের। বুধবার স্পিন বলডাক এলাকায় পাকিস্তান সীমান্ত বরাবর একটি গুরুত্বপূর্ণ ক্রসিং দখল করে নিয়েছিল তালিবানরা যা পাকিস্তান-অধ্যুষিত বালোচিস্তানের চামানের সঙ্গে আফিগানিস্তানের যোগাযোগ স্থাপন করে। যে পোস্ট আফগান সরকারের অর্থ উপার্জন, আন্তঃসীমান্ত যাতায়াত এবং বাণিজ্যের ক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সম্প্রতি আফগানি স্পেশাল ফোর্সের একটি অভিযান নিয়ে খবর করেছিলেন। দানিশের রিপোর্টে একাধিক ছবি ছিল। তাঁর তোলা ছবিতে দেখা গিয়েছিল, কীভাবে আফগানি বাহিনীর গাড়ি লক্ষ্য করে হামলা চালাচ্ছে তালিবানরা। নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেছিলেন তিনি তাতে জানিয়েছিলেন, আফগান স্পেশাল ফোর্সের যে গাড়িতে করে যাচ্ছিলেন তিনি, তাতে রকেট হামলা চালানো হয়। রকেট হামলার দৃশ্যও তাঁর ভিডিয়োয় ধরা পড়েছিল।

আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের প্রধান চিত্র সাংবাদিক ছিলেন দানিশ। টুইটারে এক সাংবাদিকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বৃহস্পতিবার রাতেই গুরুতর জখম হয়েছিলেন দানিশ। তিনি আফগান সেনা শিবিরেই ছিলেন। তাঁকে আহত অবস্থায় শিবিরে রেখেই আফগান সেনারা তালিবান বিরোধী অভিযানে গিয়েছিলেন। কিন্তু শুক্রবার সকালে ফের তালিবানি হামলার মুখে পড়ে আফগান সেনারা। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় দানিশের। ওই সাংবাদিক নেট মাধ্যমে জানিয়েছেন, দানিশের দেহাবশেষের ছবিও এসেছে তাঁদের কাছে। কিন্তু তাঁরা তা প্রকাশ করছেন না।

২০১৯ সালেই বিখ্যাত পুলিৎজার পুরস্কার জিতেছিলেন দানিশ। মায়ানমারে রোহিঙ্গাদের নিপীড়নের ছবি তুলে এই পুরস্কার পেয়েছিল রয়টার্সের চিত্র সাংবাদিকের একটি দল। সেই দলেই ছিলেন দানিশ।
এছাড়াও সম্প্রতি করোনা মৃতদেহ পোড়ানোর দীর্ঘ চিতা বা জামিয়া মিলিয়া ছাত্রদের আক্রমণের বিভিন্ন ছবিও তুলে ধরেছিলেন।

মুম্বইয়ে বাড়ি দানিশের। জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ার ছাত্র ছিলেন তিনি। টেলিভিশন সাংবাদিক হিসেবে কেরিয়ার শুরু করলেও পরে চিত্র সাংবাদিকতাকেই পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন।