পার্সোনাল সিকিউরিটি অফিসারই হেনস্থা করছেন, আদালতে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ উন্নাওয়ের নির্যাতিতার

প্রতীকী ছবি

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : রক্ষকই ভক্ষক! উন্নাওয়ের নির্যাতিতা তরুণীর নিরাপত্তার দায়িত্বে মোতায়েন করা হয় পার্সোনাল সিকিউরিটি অফিসার। অথচ সেই অফিসারই তাকে এবং তার পরিবারকে হেনস্থা করছেন। এই অভিযোগে দিল্লির আদালতের দ্বারস্থ নির্যাতিতা তরুণী।

তরুণীর ওই অভিযোগের ভিত্তিতে সিবিআইয়ের তদন্তকারী অফিসারকে ইন্টাক্ট অ্যাসেসমেন্ট রিপোর্ট জমা দিতে নির্দেশ দেন দায়রা বিচারক ধর্মেশ শর্মা। বিচারক জানান, নির্যাতিতা ও তার পরিবারকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দেওয়া হচ্ছে না। ওই অফিসারের বিরুদ্ধে অভিযোগ জমা করেছেন নির্যাতিতা তরুণী। পাল্টা পুলিশের কাছে একটি অভিযোগ জমা পড়ে। সেখানে নির্যাতিত ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানো হয়েছে। সিবিআইকে বিচারক নির্দেশ দেন, এই দুটি আবেদন খতিয়ে দেখার।

২০১৭ সালে উন্নাওয়ের এই তরুণীকে অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে তৎকালীন বিজেপি বিধায়ক কুলদীপ সেনগারের বিরুদ্ধে। অভিযুক্তের প্রভাব কাটাতে মামলা দিল্লিতে স্থানান্তরিত করা হয়। তদন্তভার হাতে নেয় সিবিআই। ২০১৯ সালে শীর্ষ আদালত নির্দেশ দেয়, নির্যাতিতা ও তার পরিবারকে নিরাপত্তা দেওয়া হবে। অন্যদিকে এই ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত সেনগারকে যাবজ্জীবন সাজা শোনায় আদালত। তবে নির্যাতিতার দুই আত্মীয় এবং তার আইনজীবী রায়বেরেলিতে একটি দুর্ঘটনার মুখে পড়েন। যাতে প্রাণ যায় দুই আত্মীয়ের। এই ঘটনাকে ষড়যন্ত্র বলে উল্লেখ করে সেনগার ও অন্য ৯ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে তরুণীর পরিবার। সিবিআই তদন্ত করে জানায়, এটা নিছকই দুর্ঘটনা। সেই সিদ্ধান্তকেই মান্যতা দেন বিচারক শর্মা।