চাচার তৈরী ধর্মান্তরের গল্প মিথ্যা ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত, বক্তব্য অবিনাশের

প্রতীকী ছবি

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: গত ২৩ জুন অবিনাশের চাচা এফআইআর দায়ের করেন তার ভাইপোকে জোরপূর্বক ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তর করা হয়েছে। কিন্তু তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে ধর্মান্তরের গল্পটি সম্পূর্ণ মিথ্যা। পুলিশ অবিনাশকে পাঞ্জাবের জলন্ধরে তার এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে পেয়েছে। অবিনাশ সংবাদ মাধ‍্যমকে জানিয়েছে, তার চাচার প্রচারিত ধর্মান্তরের গল্পটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। আসলে সে তার চাচার অত্যাচারের ফলে বাড়ি ছেড়ে চলে আসতে বাধ্য হয়েছে। তার বাবা মার মৃত্যুর পর তার চাচা তার সমস্ত সম্পত্তি আত্মসাৎ করার জন্য তার উপর অত্যাচার করত। অবিনাশের বক্তব্য, সে কখনো ধর্ম পরিবর্তন করেনি। এই ঘটনায় পুলিশ জানিয়েছে, মিথ্যা এফআইআরের জন‍্য পুলিশ তার চাচার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেবে। উল্লেখ্য যে আগামী 23 শে জুন হিন্দি সংবাদপত্র ‘দৈনিক জাগরণ’ কোন প্রমাণ ছাড়াই খবর প্রকাশ করে যে, ১৮জুন অবিনাশ বাড়িতে ফিরে জানায় ঈদের দিন মসজিদে ৪ মৌলভী ও একজন মহিলা তাকে জোর করে ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত করেছে। অপর একটি হিন্দি নিউজ ওয়েবসাইটে দাবি করা হয়, অবিনাশ লুকিয়ে নামাজ পড়তো। এমনকি সে আধার কার্ডে তার বাসস্থান পরিবর্তন করার চেষ্টা করেছিল। একশ্রেণীর মিডিয়া এই ঘটনার সঙ্গে ইসলাম প্রচারক ওমর গৌতম ও তার সহযোগী জাহাঙ্গীরের যোগসাজশ প্রমাণ করার চেষ্টা করে। উল্লেখ্য যে, ‘ইসলামিক দাওয়া সেন্টারের’ পরিচালক ওমর গৌতম ও তার সহকারি জাহাঙ্গীরকে ১০০০ জনের জোরপূর্বক ধর্মান্তরের এবং বিদেশ থেকে ধর্মান্তরের জন‍্য ফান্ড গ্ৰহণের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে। যদিও তারা তাদের বিরুদ্ধে আনা সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে দাবি করেছেন। ওমর গৌতম ও তার সহযোগীর গ্ৰেফতারির ঘটনা গোটা ভারতে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। অনেকেই নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি জানিয়েছেন।