আমাদের সীমান্তে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তাতে রাফাল বিমান শামিল করা গুরুত্বপূর্ণ ছিল: রাজনাথ সিং

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: আম্বালা ইয়ার বেস থেকে এদিন আনুষ্ঠানিকভাবে রফাল বিমানকে ভারতীয় বায়ুসেনার অন্তর্ভুক্ত করা হল। রাফাল বিমানকে ভারতীয় বায়ুসেনার ১৭ নম্বর স্কোয়াড্রন গোল্ডেন অ্যারজের অন্তর্ভুক্ত করা হল। প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং এবং ফ্রান্সের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফ্লোরস পারেলের উপস্থিতিতে রাফাল যুদ্ধবিমানকে আনুষ্ঠানিক ভাবে শামিল করা হল।

এই উপলক্ষে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং বলেন যে, আমি ঐতিহাসিক ১৭ স্কোয়াড্রনকে বিশেষ অভিনন্দন জানাতে চাই। আপনাদের নাম ভারতীয় পরাক্রমের ইতিহাসে উজ্জ্বল অক্ষরে লেখা আছে। রাফাল ‘গোল্ডেন অ্যারোজ’ কে নতুন ঔজ্জ্বল্য দেবে। আপনারা সবাই রাফিলের মতো গতিশীল হয়ে অর্থাৎ ‘ঝড়’ এর মতো দেশের ‘অখণ্ডতা’ এবং ‘সার্বভৌমত্ব’ রক্ষা করেন। তিনি আরো বলেন, পরিবর্তিত সময়ের সাথে আমাদের নিজেদের প্রস্তুত রাখতে হবে, প্রধানমন্ত্রী মোদীর জন্য জাতীয় সুরক্ষা একটি বড় অগ্রাধিকার।

রাজনাথ সিং আরো বলেন, আজ আমাদের উত্তর সীমান্তে সুরক্ষা সংক্রান্ত চ্যালেঞ্জগুলি সম্পর্কে আপনারা ভাল করেই জানেন। এমন পরিস্থিতিতে আমাদের জাতিকে রক্ষা করতে আমাদের আরও প্রস্তুত থাকতে হবে। আমাদের মনোযোগ আমাদের নিরাপত্তার প্রথম পরিমাপ। তিনি আরো বলেন, ভারতীয় বিমানবাহিনী যে গতিতে আয়াসেটগুলোকে ফরোয়ার্ড ঘাঁটিতে মোতায়েন করে তা আমাদের আত্মবিশ্বাস তৈরি করে যে আমাদের বিমান বাহিনী তার দায়িত্ব পালনে সম্পূর্ণ প্রস্তুত। ভারতের দায়িত্ব তার আঞ্চলিক সীমাতে সীমাবদ্ধ নয়; আমরা ইন্দো-প্যাসিফিক, ভারত মহাসাগর অঞ্চলে শান্তি রক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

এরপর যেকোনো পরিস্থিতিতেই আপস না করার বার্তা দিয়ে রাজনাথ সিং বলেন, আমি আজ এখানে ভারতীয় বিমানবাহিনীর সহকর্মীদের অভিনন্দন জানাতে চাই। সীমান্তে সাম্প্রতিক দুর্ভাগ্যজনক ঘটনার সময় এলএএসি-এর নিকটে ভারতীয় বিমানবাহিনী যেভাবে দ্রুত এবং পরিপক্কতার সাথে পদক্ষেপ নিয়েছে তা আপনার প্রতিশ্রুতিবদ্ধতার প্রমাণ। তিনি আরো বলেন, আমার সাম্প্রতিক বিদেশ ভ্রমণে আমি ভারতের দৃষ্টিভঙ্গি সমগ্র বিশ্বের সামনে রেখেছি। আমি যে কোনও পরিস্থিতিতে ভারতের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতার সাথে আপস না করার সমাধান সম্পর্কে সবাইকে অবহিত করেছি এবং এর জন্য আমরা সম্ভাব্য সকল প্রস্তুতি নিতে বদ্ধপরিকর।