জেএনইউ ক্যাম্পাসে সহিংস আক্রমণের ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো গ্রেপ্তার হয়নি : সরকার

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : কেন্দ্র মঙ্গলবার লোকসভাকে জানিয়েছে যে ৫ ই জানুয়ারী ২০২০ তে ঘটে যাওয়া জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে মুখোশধারী বহিরাগতদের আক্রমণের মামলায় কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি । যেখানে কিছু মুখোশধারী দুর্বৃত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং হোস্টেলে হামলা চালিয়েছিল এবং প্রায় ৩৯ জন শিক্ষার্থীকে আহত করেছিল।

সংসদের নিম্নকক্ষে একটি প্রশ্নের লিখিত উত্তরে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিত্যানন্দ রাই জানিয়েছেন, জেএনইউ ক্যাম্পাসে ছাত্র এবং কিছু শিক্ষকের উপর সহিংস হামলার ঘটনায় দিল্লি পুলিশ তিনটি মামলা দায়ের করেছে গত বছর।

দিল্লি পুলিশ সহিংসতার ঘটনায় একটি এফআইআর নথিভুক্ত করেছিল , কিন্তু ঘটনার ১৯ মাস পরেও কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি।

কেন্দ্রিয় মন্ত্রী তার উত্তরে আরও বলেন, দিল্লি পুলিশের তদন্ত দল বেশ কয়েকজন সাক্ষীর বয়ান ক্ষতিয়ে দেখছে এবং অপরাধীদের শনাক্ত করার জন্য ফুটেজের বিশদ বিশ্লেষণ সংগ্রহ করছে এবং করেছে, কিন্তু এখন পর্যন্ত দুর্বৃত্তদের শনাক্ত করার জন্য কোন চূড়ান্ত প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

৫ই জানুয়ারী, ২০২০-তে ৫০ জনেরও বেশি মুখোশধারী ব্যক্তি রড এবং লাঠি নিয়ে সজ্জিত হয়ে দিল্লির জেএনইউ ক্যাম্পাসে হামলা চালায়, যার জন্য ৩৯ জনেরও বেশি ছাত্র এবং শিক্ষক গুরুতর আহত হন।

যে শিক্ষকরা ছাত্রদের হস্তক্ষেপ এবং সুরক্ষার চেষ্টা করেছিলেন, সেইসাথে আহত ব্যক্তিদের বহনকারী অ্যাম্বুলেন্সগুলির উপরেও দুর্বৃত্তদের দ্বারা আক্রমণ হয়েছিল।এরা প্রায় তিন ঘণ্টা ধরে ভাঙচুরের পরে ক্যাম্পাসকে অবাঞ্ছিতভাবে ফেলে রেখেছিল।

আহতদের মধ্যে জেএনইউ ছাত্র ইউনিয়নের তৎকালীন সভাপতি ঐশী ঘোষও ছিলেন।

পুলিশ স্বীকারোক্তি মাধ্যমে জানান যে তারা মুখোশধারী হওয়ায় হামলার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের সনাক্ত করতে অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছেন এবং নিরাপত্তা ফুটেজ, প্রমাণিত ভিডিও রেকর্ডিং এবং সাক্ষীর অভাবের কথাও উল্লেখ করেছেন।

ঘটনার পর জেএনইউ শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের ভিতরে এবং বাইরে একটি বড় বিক্ষোভ শুরু করে। এবং যা পরে মুম্বাই, চেন্নাই, পুনে, হায়দরাবাদ, ওড়িশা, কলকাতা এবং আহমেদাবাদ সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের সূত্রপাত করে।