উত্তরপ্রদেশ সরকার মিথ্যে খবর বলে পীড়িতাকে মরার জন্য ছেড়ে দিয়েছিল; হাথরাসের ধর্ষিতা যুবতীর মৃত্যুর জন্য যোগী সরকারকে দুষলেন রাহুল গান্ধী

টিডিএন বাংলা ডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের হাথরাসে ভয়াবহ গণধর্ষণের শিকার ২০ বছরের যুবতী আজ দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ধর্ষকরা ওই যুবতীকে ধর্ষণের পর তাঁর জিভ কেটে, মেরুদন্ডের হাড় ভেঙে দিয়েছিল। পুলিশের কাছে দেওয়া বয়ানে দলিত পরিবারের কন্যা ওই যুবতী জানিয়েছিলেন, ধর্ষণের পর সমাজের তথাকথিত উচ্চবর্গের ওই দুষ্কৃতীরা তাঁকে গলাটিপে হত্যা করার চেষ্টা করেছিল। ওই ঘটনায় ভয়াবহতা এতটাই ছিল যে ওই যুবতীকে গুরুতর আহত অবস্থায় উত্তরপ্রদেশের স্থানীয় হাসপাতাল থেকে দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। লাগাতার ১৫ দিন ধরে জীবন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে শেষ পর্যন্ত শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন ওই যুবতী। এই ঘটনার পর উত্তর প্রদেশ সরকারের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি রাহুল গান্ধী। তার অভিযোগ সরকার এই ঘটনাকে মিথ্যে ঘটনা বলে দাবি করে ওই পীড়িতাকে মরার জন্য ছেড়ে দিয়েছিল।

একটি টুইটে যোগী সরকারের তীব্র সমালোচনা করে রাহুল গান্ধী লেখেন,”উত্তরপ্রদেশের বর্গ বিশেষ জঙ্গল রাজ আরও এক যুবতীকে মেরে ফেলল। সরকার বলেছিল এটা মিথ্যে খবর আর পীড়িতাকে মরার জন্য ছেড়ে দিয়েছিল। না তো এই দুর্ভাগ্য পূর্ণ ঘটনা মিথ্যে ছিল, না পীড়ীতের মৃত্যু আর না তো সরকারের নিষ্ঠুরতা।”