বিশ্বের এক-নম্বর তুর্কি বক্সারের কাছে সেমিতে হেরে ব্রোঞ্জ জিতলেন লাভলিনা, টোকিওয় তৃতীয় পদক ভারতের

টিডিএন বাংলা ডেস্ক : টোকিও অলিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ জিতেই সন্তুষ্ট থাকতে হল লভলিনা বোর্গোহাইকে। টোকিও অলিম্পিকে বক্সিংয়ের সেমিফাইনালে হেরে গেলেন ভারতের এই তরুণ মহিলা। ভারতের হয়ে ব্রোঞ্জ জয় করেলন তিনি। বুধবার ৬৪-৬৯ কেজি উইমেন্স ওয়েল্টারে প্রতিপক্ষ তুরস্কের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন বুসেনাজ সুরমেনেলির কাছে হারলেন লভলিনা। খেলার ফল ৩০-২৬, ৩০-২৫, ৩০-২৫, ৩০-২৫, ৩০-২৫ এ৷ বুসেনাজ সুরমেনেলি এদিন রিংয়ে কার্যত অপ্রতিরোধ্য ছিলেন৷

বেশ কয়েকবার ভাল পাঞ্চ করলেও অভিজ্ঞতাতেই এদিন মূলত বাজিমাত করেন তরুস্কের বক্সার। দ্বিতীয় রাউন্ডে একটা সময় তুরস্কের বক্সারের থেকেও ভাল পারফর্ম চোখে পড়ছিল লভলিনার। কিন্তু পুরো ম্যাচ জুড়ে আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে খেলে জয় হাসিল করে নেন বুসেনাজ সুরমেনলি।

আগেই অলিম্পিক্সে ভারতের দ্বিতীয় পদক নিশ্চিত করেছিলেন বক্সার লভলিনা বোর্গোহাই। চিনা তাইপেইয়ের প্রতিদ্বন্দ্বীকে হারিয়েছিলেন ৪-১ ফলে। অসমের প্রথম মহিলা বক্সার হিসেবে অলিম্পিক্সের যোগ্যতা অর্জন করেই পদক নিশ্চিত করেছিলেন। অপেক্ষা শুধু ছিল কোন পদক তাঁর গলায় ঝুলবে? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে এদিন সকাল থেকেই টিভির পর্দায় চোখ রেখেছিলেন ক্রীড়াপ্রেমীরা।

এদিনের ম্যাচে প্রথম রাউন্ডেই পরাজয় দিয়ে শুরু করেন লভলিনা। ম্যাচের স্কোর ছিল ৫-০। দ্বিতীয় রাউন্ডে মোট পয়েন্ট থেকে পয়েন্ট বাদ যায়। এরপর তৃতীয় ও চতুর্থ রাউন্ডে বিশ্বের এক নম্বর বক্সারের কাছে হার স্বীকার করতে হয় ভারতের লভলিনাকে। যদিও ভারতের হয়ে ব্রোঞ্জ জিতে তৃতীয় পদকটি আনলেন তিনি।

তুরস্কের প্রতিদ্বন্দ্বী সুরমেনেলি ছিলেন কঠিন প্রতিপক্ষ। যিনি এ বছর আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে দু’টি সোনা পেয়েছেন। ছ’বছর আগে তিনি দেশের প্রেসিডেন্টকে অলিম্পিক্স পদক এনে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এ সবে অবশ্য অবিচলিত ছিলেন অসম কন্যা লভলিনা। তার কোচ বঙ্গসন্তান আলি কামার টোকিও থেকে সংবামাধ্যমগুলোতে বলেছিলেন, ”লভলিনা এখন খুবই আত্মবিশ্বাসী। এই লড়াইয়ের জন্য পুরোপুরি তৈরি। এই দুই বক্সার এর আগে মুখোমুখি হয়নি। ফলে দু’জনেরই সমান সমান সুযোগ থাকবে।”

অলিম্পিকে ভারতীয় বক্সিংয়ের ইতিহাসে বিজেন্দ্র সিং ও মেরি কমের পর আবার পদক জয় করলেন লভলিনা। বক্সিংয়ে ২০০৮ অলিম্পিক্সে বিজেন্দর সিংহ পদক জিতেছিলেন। এরপর ২০১২ লন্ডন অলিম্পিক্সে কিংবদন্তি মেরি কমও পদক জিতেছিলেন। ২ জনেই অলিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ জিতেছিলেন। এদিন লভলিনাও ব্রোঞ্জ জিতলেন। প্রথমবার অলিম্পিক্সে খেলতে নেমেছিলেন লভলিনা। আর প্রথমবারেই পদক জিতে বাড়ি ফিরছেন।

এ বার পদকের লড়াই থেকে ছিটকে গিয়ে মেরি কম বলেছিলেন, আমি পারিনি, কিন্তু আমাদের সোনা এনে দেবে লভলিনা। কিন্তু অসম কন্যা নিরাশ করলেন আসল লড়াইয়ে। জয়ের জন্য তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছেন সকলে।